উখিয়ার উপকূলে ১২৫ রোহিঙ্গা উদ্ধার, বোট সহ মাঝি আটক

প্রকাশ:| শনিবার, ১১ নভেম্বর , ২০১৭ সময় ০১:০২ পূর্বাহ্ণ

কায়সার হামিদ মানিক, উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি:
কক্সবাজারের উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়নের উপকূলীয় এলাকা ইমামের ডেইল সমুদ্র সৈকত থেকে ১২৫ জন রোহিঙ্গা বোঝাই একটি বোট জব্দ করেছে পুলিশ। শুক্রবার বিকেলে কূলে ভিড়তে গিয়ে বোটটি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আসে। নিষেধাজ্ঞার পরও রোহিঙ্গাদের বহন করায় বোটের মাঝিকে আটক করেছে পুলিশ। আটক মাঝির নাম আবদুল মাজেদ (৩৭)। তিনি ঐ ইউনিয়নের সোনারপাড়া এলাকার আবুল শামার ছেলে। তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে কক্সবাজার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল বলেন, নিজ দেশ মিয়ানমারে নিপীড়নের শিকার রোহিঙ্গারা নানা ভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ অব্যাহত রেখেছে। চলতি সংকটের পর বেশ কিছু মাছ ধরার নৌকা অর্থের বিনিময়ে ওপার থেকে রোহিঙ্গাদের এপারে আনে। মাঝখানে নানা কারণে ডুবে গেছে রোহিঙ্গা বোঝাই প্রায় ২৮টি নৌকা। ফলে সলিল সমাধি হয়েছে প্রায় ২ শতাধিক নারী-শিশু ও পুরুষের। ফলে অনাকাঙ্খিত মৃত্যু এড়াতে এপার থেকে কোন নৌকা মিয়ানমার যেতে নিষেধ করা হয়। এরপরও যারা লোভাতুর হয়ে গেছে এসব নৌকার মালিক, মাঝি ও দালালসহ ৪৫২ জনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাজা দেয়া হয়। সাজার ভয় ও সীমান্ত প্রহরীদের কড়া পাহারার কারণে বোট নামা এক প্রকার বন্ধ রয়েছে। কিন্তু বুধবার থেকে হঠাৎ ভেলায় করে রোহিঙ্গা আসার খবরে অসাধু কিছু নৌকার মালিক, মাঝি ও দালাল চক্র আবার নদী পথে রোহিঙ্গা আনতে তৎপরতা শুরু করেছে। আইনপ্রয়োগকারি সংস্থার চোখ ফাঁকি দিয়ে তারা আবার মিয়ানমার উপকূল থেকে রোহিঙ্গা আনতে গেছে, এমন খবরে জালিয়াপালং এলাকার উপকূলে পাহারা বাড়ানো হয়। শুক্রবার বেলা ২টার দিকে রোহিঙ্গা বোঝাই একটি বোট তীরে আসলে ওৎপেতে থাকা পুলিশ সদস্যরা বোটটি জব্দ করে। এখানে নারী-শিশু ও পুরুষ মিলিয়ে প্রায় ১২৫ জন রোহিঙ্গা রয়েছে। যাদের অধিকাংশই শিশু ও নারী। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রোহিঙ্গা বহনের দায়ে বোটের মাঝি মাজেদকে আটক করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, চলতি সংকটের পর থেকে যেহেতু বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক আচরণ করে আশ্রয় দিচ্ছেন সেহেতু হেফাজতে নেয়া ১২৫ রোহিঙ্গাকে যথাযথ তল্লাশীর পর কুতুপালং ক্যাম্পে পাঠানোর উদ্যোগ চলছে। আটক বোট মাঝিকে সাজার আওতায় এনে বোটটি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে হস্তান্তর করা হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।