ইয়াবা প্রতিরোধে এগিয়ে আসার আহবান

প্রকাশ:| রবিবার, ৩০ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১০:৩৫ অপরাহ্ণ

শামসু উদ্দীন,টেকনাফ:

টেকনাফে মাদক ইয়াবা প্রতিরোধে আইনশৃংখলা বাহিনীর বিশেষ অভিযান স্বত্তেও ইয়াবা পাচার ও সেবন দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলা মাসিক আইনশৃংখলা কমিটির সভায় জনপ্রতিনিধিরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। পাশাপাশি বড় বড় ইয়াবা জব্দের ঘটনায় আসামী কিংবা মুল হোতারা গ্রেফতার না হওয়ায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা করা হয়েছে।
৩০ এপ্রিল রবিবার টেকনাফ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হোসেন ছিদ্দিকীর সভাপতিত্বে উপজেলা আইনশৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তারা বলেন, আইনশৃখলা বাহিনীর কতিপয় সদস্যদের সাথে মাদক পাচারকারী গডফাদারসহ সকলের সখ্যতা রয়েছে। ফলে ইয়াবা অভিযান ও পাচার প্রতিরোধে সফলতা আসছেনা। সেন্টমার্টিনদ্বীপেও এখন মাদক ইয়াব ছড়িয়ে পড়েছে। বিশেষ করে কয়েকজন মহিলা সম্প্রতি বেপরোয়াভাবে মাদক পাচারে জড়িয়ে পড়েছে। এদের আইনের আওতায় আনতে শিগগিরই অভিযান জরুরী।
বক্তারা মানবপাচার শূণ্যে নিয়ে আসায় আইনশৃংখলা বাহিনীর প্রশংসা করে আরো বলেন, শুধু বড় বড় ইয়াবার চালান আটক করে বাহবা নিলে হবেনা। এদের সাথে সম্পৃক্ত রাঘব বোয়ালদের খুঁজে বের করতে হবে। ইয়াবা উড়ে আসে না। নিশ্চয় কোন বাহন দিয়ে এদেশে পাচার হয়ে আসছে। ওই সব মাদক পাচারকারীদের কাছে বড় বড় ট্রলার ও ফিশিং বোট রয়েছে। ওই বাহন খুুঁজে প্রকৃত মালিককে বের করে আইনের আওতায় আনা না হলে অদুর ভবিষ্যতে ইয়াবা পাচার আরো ভয়াবহ আকার ধারন করবে। সম্প্রতি মালিক বিহীন ১২ লাখসহ প্রচুর ইয়াবা আটক করা হয়েছে। অথচ কোন আসামী নেই এবং কোন পাচারকারীর বিরুদ্ধে মামলা হয়নি। সভায় প্রকৃত মাদক ইয়াবা পাচারকারীদের নতুন তালিকা তৈরী করার আহবান জানান। ইয়াবা পাচারের পাশাপাশি এখন সেবনের সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। এদের আস্তানা চিহ্নীত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে আইনশৃংখলা বাহিনীকে আহবান জানান বক্তারা।
একপর্যায়ে শাহপরীরদ্বীপ আওয়ামীলীগের সভাপতি সোনা আলী বলেন, টেকনাফের সাংবাদিকরা শুধু আইনশৃংখলা বাহিনীর প্রেস রিলিজ নির্ভর সংবাদ পরিবেশন করে থাকেন। অথচ বড় বড় মাদক পাচারকারী ও অবৈধ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কলম ধরেনা বলে অভিযোগ তুলেন।
নবাগত উপজেলা নিব্র্াহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন ছিদ্দীকি বলেন, মাদক ইয়াবা শুধু টেকনাফের সমস্যা নয়। ইহা দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। ইয়াবা প্রতিরোধে সকলকে এক যোগে কাজ করতে হবে। পাশাপাশি এই অঞ্চলে র‌্যাবের টহল জরুরী বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাওঃ রফিক উদ্দীন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাহেরা আক্তার মিলি, হোয়াইক্যং ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ আনোয়ারী, সেন্টমার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ, সাবরাং ইউপি চেয়ার‌্যমান নুর হোসেন, টেকনাফ মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার আবুল খায়ের, বিজিবি প্রতিনিধি ইব্রাহীম, আওয়ামীলীগ নেতা সোনা আলী, আবুল কালাম প্রমূখ। সভায় সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী, জনপ্রতিনিধিসহ মিডিয়াকর্মী উপস্থিত ছিলেন।পরে মাসিক সমন্নয় কমিটির সভা অনুষ্টিত হয়। অনুষ্টানে বিভিন্ন দপ্তরের কার্যএম আলোছনাকরা হয়।


আরোও সংবাদ