ইয়াবার জোয়ারে ভাসছে সাবরাং এর উপকূল

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারি , ২০১৮ সময় ০৮:০৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, টেকনাফ:
টেকনাফের সাবরাং সাগর উপকূল এখন মরণব্যাধী ইয়াবা প্রবেশের ট্রানজিট পয়েন্টে পরিনত হয়েছে। সাগর উপকূলীয় কাটাবনিয়া, খুরেরমূখ, মুন্ডার ডেইল, হাদুরছড়া, কোয়াংছড়ি পাড়া ও আলীর ডেইল বর্তমানে ইয়াবার জোয়ারে ভাসছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মিয়ানমারে রাখাইন (আরাকান) রাজ্যে সন্ত্রাস দমনের নামে সে দেশের সামরিক জান্তা ও উগ্রপন্থী রাখাইনেরা রোহিঙ্গাদের উপর নির্বিচারে দমন নিপীড়ন ও গণহারে হত্যা চালালে ২০১৭ সালে ২৫ আগষ্ট থেকে দলে দলে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ এবং মাদক ঢুকলে প্রশাসন নাফ নদীতে মাছ আহরণ বন্ধ করে দেয়। বিকল্প পথ টেকনাফ ও সাবরাং সাগর উপকূল এলাকা দিয়ে ফিসিং ট্রলার যোগে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ছাড়া ও ¯্রােতের ন্যায় ইয়াবা ঢুকে। এ সময় আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে প্রতিনিয়তই ইয়াবার চালান জব্দ হলেও পাচারকারী এবং মূল হোতারা রয়েছে ধরাছোয়ার বাইরে। এর পরও পাচার কিন্তু থামেনী। অনুসন্ধানী রিপোর্টের প্রেক্ষিতে এসব তথ্য বের হয়ে আসছে। তথ্য মতে সাগর উপকূল পথে বেশীরভাগ ইয়াবা পাচারের সাথে জড়িত থাকলেও পর্দার অন্তরালে পরোক্ষভাবে প্রভাবশালী পরিবারেরা জড়িত থাকে। এরা হচ্ছেন, খাইর হোসেন, ফারুক, ঈমন, সাদ্দাম হোসেন, মোয়াজ্জেম হোসেন ও জয়নাল। নেপথ্যে কলকাটি নাড়াচ্ছেন, স্বরাষ্টমন্ত্রনালয়ের তালিকাভূক্ত এক প্রভাবশালী । ইয়াবা ব্যবসার সাথে নব্য ইয়াবা ব্যবসায়ীরা এখন শীর্ষে রয়েছে বলে এলাকায় অভিযোগ উঠেছে। সাবরাং সাগর উপকূল এখন ওদের আদিপাত্য চলছে। উপকূল দিয়ে ইয়াবা চালান আনতে হলে ওদের নজরানা দিতে হয়। নইলে উঠানো যায়না। আরো জানা যায়, সাবরাং এর ঈমন নামে ৯ শ্রেণীর ছাত্র ইয়াবা ব্যবসা করে বর্তমানে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন বলে এমন তথ্য পাওয়া যায়। তার এ কারণে স্থানীয় ছাত্র ও যুবকেরা এ পথে দ্রোত ধাবিত হচ্ছে। হঠাৎ তার উত্তান নিয়ে এলাকাবাসীকে সে ভাবিয়ে তুলেছে।