ইসলামী শক্তিকে শুন্যতা পূরণে এগিয়ে যেতে হবে: ইসলামী ঐক্যজোট

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১২ জুন , ২০১৫ সময় ১০:৫৩ অপরাহ্ণ

ইসলামী ঐক্যজোটের মজলিসে শুরার সভার প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সফরকালে যে ২২ টি চুক্তি,প্রটোকল ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে, তাতে একটি পক্ষই সুবিধা লাভ করবে । ভারত তার অর্থনৈতিক ও কৌশলগত সুবিধা আদায় করে নিয়েছে ; সড়ক পথ , নৌ পথসহ সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভারত পেয়ে গেছে , তিনটি বাস সার্ভিস চালু হয়েছে ।এছাড়া চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্র বন্দর ব্যবহার করার সুফলও পাবে ভারত।এর মাধ্যমে বঙ্গোপসাগরে ভারতের আঞ্চলিক ভূ-রাজনৈতিক কৌশলগত উপস্থিতি মজবুত হবে।এমনকি জীবনবীমার ক্ষেত্রে ভারতীয় বীমা কোম্পানী বাংলাদেশে ব্যবসা করার সুযোগ পাবে।

আইওজে মজলিসে শুরার অপর এক প্রস্তাবে বলা হয়েছে, আমরা গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি, ক্ষমতার লোভে সাম্প্রতিককালে অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যার দাবি, তিস্তা, টিপাই ও ফেনী নদীর কথা কেউ তুলে ধরতে পারেন নি। আবার কেউ বলেছে, ‘আমরা ভারত বিরোধী নই’। এমন কাকুতি-মিনতি ও নির্ভরশীল মানসিকতা তৈরি হলে এককভাবে সোজা হয়ে দাড়ানোও সম্ভব হয় না।তাদের এই দেউলিয়াত্বের দুঃখজনক পরিণতি জাতিকে ভোগ করতে হচ্ছে। ইতিহাসের শিক্ষা হচ্ছে-শূন্যতা কখনো স্থায়ী থাকে না, কোনো না কোনোভাবে তা পূরণ হয়ে যায়। ইসলামী শক্তিকে সে শুন্যতা পূরণ করতে এগিয়ে আসতে হবে।

অপর এক প্রস্তাবে পবিত্র রমজান মাসে দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি রোধ করে কুরআন নাজিলের এই মহান মাসের পবিত্রতা রক্ষায় অশ্লীলতা বেহায়াপনা রোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ , দিনের বেলা হোটেল রেস্তোরা বন্ধ রাখার আহবান জানানো হয়।

নিরীহ রোহিংগা মুসলমানদের ওপর নৃশংস বর্বরতার প্রতিবাদে অবিল¤ে॥^ মিয়ানমারের ওপর ব্যাপকভিত্তিক সামরিক ও অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপের জন্য জাতিসংঘসহ সকল দেশের বিশেষত মুসলিম দেশের সরকার প্রধানদের প্রতি আহবান জানিয়ে আইওজে মজলিসে শুরা বলেছেন, রোহিঙ্গা মুসলমানদের চলমান মহা বিপদে বিশ্ব মুসলিম রাষ্ট্র প্রধানদের প্রতিবাদের কণ্ঠ যদি গর্জে না উঠে, মুসলিম গণহত্যা বন্ধ না হয় তবে সাধারণ মুসলমান ঘরে বসে থাকবেন না।
আজ শুক্রবার বাদ জুমা লালবাগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা মোঃ আবদুল লতফি নজোমীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠতি মজলিসে শুরার সভায় বক্তব্য রাখেন, মহাসচবি মুফতী ফয়জুল্লাহ, ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুর রকীব এডভোকটে,মাওলানা আব্দুল হামীদ পীর সাহেব মধুপুর, মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী, মাওলানা আব্দুর রশীদ মজুমদার, যুগ্ম মহাসচিব মুফতী মুহাম্মদ তৈয়্যেব হোসাইন, মাওলানা আবদুল করীম,মাওলানা ফজলুর রহমান, সহকারী মহাসচিব মাওলানা আবুল কাসেম, মাওলানা শেখ লোকমান হোসাইন, মাওলানা যুবায়ের আহমদ, মাওলানা জসীম উদ্দীন, মাওলানা এহতশোম সরওয়ার, মুফতী সাখাওয়াত হোসাইন, মাওলানা শওকত আমীন,মাওলানা রিয়াজতুল্লাহ, মাওলানা আলতাফ হোসাইন, মাওলানা আব্দুল আজজি প্রমুখ।


আরোও সংবাদ