ইসলামাবাদ মমতাজুল উলুম মাদ্রাসায় বৃক্ষরোপণ সম্পন্ন

প্রকাশ:| রবিবার, ২৪ জুলাই , ২০১৬ সময় ১১:২৬ অপরাহ্ণ

বৃক্ষরোপন ২সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও প্রতিনিধি: কক্সবাজার সদর উপজেলার ইসলামাবাদ মমতাজুল উলুম ফরিদিয়া আলিম মাদ্রাসায় ফলজ ও বনজ চারা রোপন কর্মসূচী সম্পন্ন হয়েছে। রবিবার সকাল ১০ টায় কর্মসূচীর উদ্ভোধন করেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা জসিম উদ্দিন। এসময় তিনি উপস্থিত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর উদ্দেশ্যে বলেন, বিশ্বে জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গাছ লাগানোর কোন বিকল্প নেই। ভবিষ্যতে প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষা করতে হলে সমাজের প্রত্যেক স্তরের মানুষকে অবশ্যই বৃক্ষের চারা রোপন করতে হবে। ভবিষ্যৎ প্রজম্মের জন্য বাসযোগ্য পৃথিবী রেখে যেতে হলে, প্রত্যেক নাগরিকের উচিত একটি গাছ কাটার আগে যেন দু’টি বৃক্ষের চারা রোপন করেন। এসময় মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির শিক্ষানুরাগী সদস্য আলহাজ্ব নুরুল ইসলাম, আরবী প্রভাষক মাওলানা মোহাম্মদ ইউনুছ, প্রভাষক মনজুর আলম, মাষ্টার আবদুল মান্নান, মাওলানা নুরুল আবছার, মাষ্টার আবুতাহের, মাওলানা আমান উদ্দিন ও মাষ্টার রওশন আলমসহ মাদ্রাসার কয়েক শতাধিক শিক্ষাথী কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণ করেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সামাজিক বাগানের অংশ হিসাবে মাদ্রাসার উত্তর পাশে প্রায় কয়েক শতাধিক ফলজ ও বনজ চারা রোপন করা হয়।

সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও প্রতিনিধি: কক্সবাজার সদর উপজেলার ইসলামাবাদ মমতাজুল উলুম ফরিদিয়া আলিম মাদ্রাসায় ফলজ ও বনজ চারা রোপন কর্মসূচী সম্পন্ন হয়েছে। রবিবার সকাল ১০ টায় কর্মসূচীর উদ্ভোধন করেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা জসিম উদ্দিন। এসময় তিনি উপস্থিত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর উদ্দেশ্যে বলেন, বিশ্বে জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গাছ লাগানোর কোন বিকল্প নেই। ভবিষ্যতে প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষা করতে হলে সমাজের প্রত্যেক স্তরের মানুষকে অবশ্যই বৃক্ষের চারা রোপন করতে হবে। ভবিষ্যৎ প্রজম্মের জন্য বাসযোগ্য পৃথিবী রেখে যেতে হলে, প্রত্যেক নাগরিকের উচিত একটি গাছ কাটার আগে যেন দু’টি বৃক্ষের চারা রোপন করেন। এসময় মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির শিক্ষানুরাগী সদস্য আলহাজ্ব নুরুল ইসলাম, আরবী প্রভাষক মাওলানা মোহাম্মদ ইউনুছ, প্রভাষক মনজুর আলম, মাষ্টার আবদুল মান্নান, মাওলানা নুরুল আবছার, মাষ্টার আবুতাহের, মাওলানা আমান উদ্দিন ও মাষ্টার রওশন আলমসহ মাদ্রাসার কয়েক শতাধিক শিক্ষাথী কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণ করেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সামাজিক বাগানের অংশ হিসাবে মাদ্রাসার উত্তর পাশে প্রায় কয়েক শতাধিক ফলজ ও বনজ চারা রোপন করা হয়।