ইসলামকে অনুসরণ করতে পারলে এ দেশে কোনো হানাহানি ও সন্ত্রাস থাকবে না

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৯ এপ্রিল , ২০১৬ সময় ০৮:৪২ অপরাহ্ণ

CTG PIC- HAFAZATদেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেছেন, আজ সর্বত্র ইসলামকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা চলছে। ইসলামের ওপর আঘাত হানা হচ্ছে নানাভাবে। আমাদের অনৈক্য আর নিজ ধর্মের মধ্যে কতিপয় গোমরাহ ও ধর্মবিরোধীর কারণেই বিধর্মীরা সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে। ইসলামে অসত্য, অন্যায়, সন্ত্রাসের কোনো স্থান নেই। ইসলাম ন্যায় ও শান্তির ধর্ম। ইসলামকে অনুসরণ করতে পারলে এ দেশে কোনো হানাহানি ও সন্ত্রাস থাকবে না।

দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম বিখ্যাত ইসলামি শিক্ষাকেন্দ্র চট্টগ্রামের জামিয়া দারুল উলুম হাটহাজারী মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসের খতমে বুখারি ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শুক্রবার বিকেলে তিনি এ কথা বলেন।

আহমদ শফী বলেন, তাক্বওয়া তথা খোদাভীতি ছাড়া পরিপূর্ণ মুমিন হওয়া যায় না। অপরদিকে আল্লাহ ভয় মানুষের অন্তরে না থাকার ফলে সমাজে অপরাধ প্রবণতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। অন্তরে খোদাভীতি থাকলে কারো পক্ষে শরীয়তের হুকুম লঙ্ঘন করা, হারাম পথে চলা কিছুতেই সম্ভব নয়। খোদাভীতির অপর নাম তাক্বওয়া। আর এই তাক্বওয়া থেকে দূরে থাকার কারণেই বর্তমানে বিশ্বব্যাপী মুসলমানগণ নানাভাবে পর্যুদস্ত ও নির্যাতিত হচ্ছে। মুসলমানদেরকে এই দুর্দশা থেকে রেহাই পেতে পূর্ণাঙ্গ তাক্বওয়া অর্জনের পাশাপাশি ঈমানী শক্তি নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মুসলিম জাতিসত্তা ও দেশের স্বার্থে কাজ করতে হবে।

হেফাজত আমির বলেন, মুসলমানদেরকে সর্বপ্রথম নিজের ঈমান মজবুত করতে হবে। ঈমান মজবুত করার জন্যে সকাল-বিকাল বেশি বেশি করে কালিমার জিকির করতে হবে। আল্লাহর নাম জপতে হবে। অন্তরে আল্লাহর বড়ত্ব, রহমতের আশা ও আজাবের ভয় তৈরি হলে ইসলামের বিরুদ্ধের কোনো শক্তিই মুসলমানদেরকে কাবু ও বিপথগামী করতে পারবে না।

আল্লামা শাহ আহমদ শফী আরও বলেন, দেশের উলামা-মাশায়েখসহ সর্বস্তরের মুসলমানদেরকে আল্লাহ-রাসূলের ইজ্জত-সম্মান, ঈমান, ইসলাম ও মুসলিম স্বার্থের প্রশ্নে সব সময় সাহসিকতার সাথে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। মনে রাখতে হবে, মৃত্যু আমাদের একদিন অবশ্যই হবে। মুসলমানের স্থায়ী নিবাস পরকাল ও জান্নাত। তাই মুসলমান কখনো মৃত্যুর ভয়ে ভীত হয় না। আর সেই মৃত্যুটা যদি শাহাদাতের মৃত্যু হয়, তা তো একজন মুসলমানের জন্য অবশ্যই গর্বের বিষয়।

এর আগে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বৃহৎ কওমি শিক্ষাকেন্দ্র জামিয়া দারুল উলূম হাটহাজারীর দাওরায়ে হাদিস (স্নাতকোত্তর) সমাপনী বর্ষের হাদীস শাস্ত্রের সর্বনির্ভরযোগ্য গ্রন্থ বুখারি শরিফের শেষ ক্লাসের পর আখেরি মোনাজাত ও বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সমাপনী ক্লাস ও দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন হেফাজতে ইসলামের আমির ও দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারীর মহাপরিচালক ও শায়খুল হাদিস পীরে কামেল আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এই দ্বীনি সমাবেশে আগত অতিথি ছাড়াও দাওরায়ে হাদিস (টাইটেল) সমাপনী ক্লাসের ২ হাজার ৬০০ জন তরুণ আলেম শরিক ছিলেন।

সমাবেশে উপস্থিত হাজারো উলামায়ে কেরাম ও ইসলামী নেতৃবৃন্দের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন প্রখ্যাত মুহাদ্দিস হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরী, হাটহাজারী মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা মুফতি জসীম উদ্দীন, মাওলানা ফোরকান আহমদ, মাওলানা আশরাফ আলী নিজামপুরী প্রমুখ।


আরোও সংবাদ