ইসরায়েলে ফেরত পাঠানো হয়েছে গুপ্তচর শকুন

প্রকাশ:| শনিবার, ৩০ জানুয়ারি , ২০১৬ সময় ০৭:৩৩ অপরাহ্ণ

গুপ্তচর সন্দেহে লোবাননে গত মঙ্গলবার আটক ইসরায়েলী শকুনটিকে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষীবাহিনীর মধ্যস্থতায় ইসরায়েলে ফেরত পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা। ইসরায়েলী কর্তৃপক্ষ জানায়, অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে যে শকুনটি লেবাননের গ্রামবাসীর হাতে ধরা পড়েছিল অবশেষে তা তারা ফিরিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, গত মঙ্গলবার লেবাননের একটি গ্রামের বাসিন্দারা শকুনটি আটক করে। পাঁচ ফিট ছয় ইঞ্চি প্রশস্ত ডানাবিশিষ্ট এই শকুনটি ইসরায়েলের একটি বন্যসংরক্ষাণাগার থেকে লেবাননে যায়। পরবর্তীতে সেখানকার গ্রামবাসীরা গোয়েন্দা সন্দেহে এটিকে আটক করে। শকুনটির লেজে গোয়েন্দাগিরি কাজে ব্যবহৃত একটি যন্ত্র সংযুক্ত থাকায় এটিকে সন্দেহ করে তারা।

ইসরায়েলের বন্যপ্রাণি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এটি ছিল তাদের অভয়ারণ্যে সংরক্ষিত একটি শকুন। মধ্যপ্রাচ্যে শকুন পুনর্বাসন কার্যক্রমের অংশ হিসেবে এটিকে গত বছর স্পেন থেকে আনা হয়েছিল। এক মাস আগে ইসরায়েল-অধিকৃত গোলান মালভূমির ‘গামলা অভয়ারণ্যে’ শকুনটিকে মুক্ত করে দেয়া হয়।

ইসরায়েলের তেল আবিব বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তারা মূলত পাখিটিকে নিয়ে গবেষণা করছিল। আর এ কারণেই এর পাখায় ইন্টারনেট-সংযুক্ত স্থান শনাক্তকারী একটি ‘জিপিএস ট্রান্সমিটার’ লাগানো ছিল এবং পায়ে ‘তেল আবিব বিশ্ববিদ্যালয় ইসরায়েল’ লেখা সংবলিত একটি ধাতুও ছিল।

শকুনলেবাননের গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, গ্রামবাসীর হাতে গুপ্তচরবৃত্তির সন্দেহে শকুনটি ধরা পড়ার পর তারা বুঝতে পারে, এটি আসলে কোনো গুপ্তচর নয়। কারণ পাখিটি ছিল খুবই দুর্বল এবং আহত।

উল্লেখ্য, ইসরায়েলী গুপ্তচর সন্দেহে আটক এটিই প্রথম কোন শকুন নয়। এর আগে ২০১১ সালেও একবার সৌদি আরবের হায়াল শহরে এমনই একটি শকুন আটক করা হয়েছিল। বিষয়টি পরে ইসরায়েলী কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনায় করে মিমাংসা করা হয়।