ইরানের পরমাণু আলোচনায় অচলাবস্থা

প্রকাশ:| সোমবার, ৬ জুলাই , ২০১৫ সময় ১০:৩২ অপরাহ্ণ

ভিয়েনার ছয় জাতির সঙ্গে ইরানের পরমাণু আলোচনায় অচলাবস্থা দেখা দিয়েছে। ইরান তাদের ওপর জাতিসংঘের আরোপিত ক্ষেপনাস্ত্র প্রকল্পসহ সুপরিসর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার দাবি জানালে সোমবার এ অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়।

৭ জুলাই অর্থাৎ আগামীকালের মধ্যে ছয় জাতি ও ইরানের মধ্যে পরমাণু ইস্যুতে চূড়ান্ত চুক্তি সম্পাদানের বাধ্যবধকতা রয়েছে। এ লক্ষ্যে গত সপ্তাহে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় বৈঠকে বসেছেন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন. জার্মানী, ফ্রান্স, রাশিয়া, চীন ও ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রীরা।

এক পশ্চিমা কূটনীতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, ইরানিরা ক্ষেপনাস্ত্র অবরোধের অপসারণ চাইছে। তাদের ভাষ্য এর সঙ্গে পরমাণু ইস্যুর কোন সম্পর্ক নেই, যা তাদের পক্ষে মেনে নেয়া কঠিন।’

তবে পশ্চিমা জোট এ ব্যাপারে ছাড় দিতে রাজী নয় জানিয়ে ওই কূটনীতিক বলেন, ‘ আমাদের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোন আগ্রহ নেই।’

এক ইরানি কর্মকর্তা বলেন,‘ পশ্চিমাদের দাবি শুধু এটাই নয় ( ক্ষেপনাস্ত্র প্রকল্প) অবরোধের আওতায় থাকবে তা নয়, ইরানকে এ সংক্রান্ত সকল প্রকল্প বাদ দিতে হবে। তবে ইরান তার অধিকারের ওপর জোর দিচ্ছে এবং জানিয়েছে, জাতিসংঘের অবরোধ যখন অপসারণ করা হবে তখন ক্ষেপনাস্ত্র প্রকল্পসহ সকল অবরোধ উঠিয়ে নিতে হবে।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক ইরানি কর্মকর্তা জানান, তেহরান চাচ্ছে জাতিসংঘের অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা যাতে পুরোপুরি বাদ দিয়ে দেয়া হয়।

তবে আরেক পশ্চিম কূটনীতি জানিয়েছেন, পশ্চিমারা চাচ্ছে ইরানের ওপর যেন অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা থাকে। আর এটি পুরোপুরি সরিয়ে নেয়া ‘ একেবারেই অসম্ভব’।

এদিকে বিতর্কিত বেশ কিছু বিষয়ে যে শেষ মুহূর্তেও কোন সমঝোতায় আসা যায়নি তা উল্লেখ করে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি বলেছেন, ‘বেশ কিছু কঠিন ইস্যুতে দুই পক্ষের যেখানে থাকার কথা ছিল আমরা সেখানে নেই।’

এর আগে তিনি বলেছিলেন, ‘ যদি কঠিন কিছু সিদ্ধান্ত আমরা নিয়ে নিতে পারি তাহলে আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই চূড়ান্ত চুক্তি হয়ে যাবে।’

শেষ বেলায় এসে সম্ভাবনার কথা বললেও হতাশার সুর ফুটতে শুরু করেছে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফের কন্ঠে। বেশ কিছু বিষয়ে এখও মতদ্বৈততা রয়ে গেছে জানিয়ে সোমবার তিনি বলেছেন, ‘ এখনও অনেক কিছু পরিস্কার নয়।’


আরোও সংবাদ