ইভটিজিংয়ের অভিযোগ দেয়াকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক আহত

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৫ মে , ২০১৮ সময় ০৯:৩৫ অপরাহ্ণ

নেত্রকোনার মদন থানায় ইভটিজিংয়ের অভিযোগ দেয়াকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত অর্ধশতাধিক আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে।

গুরুতর আহতদের মধ্যে সাদ্দাম, ছদ্দু মিয়া, উসমান, রুস্তম আলী, সাইদুর রহমান, এমদাদ মিয়া, নান্টু মিয়া, আমিন, মঞ্জু মিয়াকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। অন্য আহতরা মদন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মঙ্গলবার উপজেলার মদন দক্ষিণপাড়ায় ঈদগাহ মাঠের পাশে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এর আগে সোমবার রাতে তাজুল ইসলামের পক্ষের লোকজন রহিছ মিয়া পক্ষের লোকজনের নামে মদন থানায় একটি ইভটিজিংয়ের অভিযোগ দায়ের করে।

প্রত্যক্ষদর্শীয় ও থানা সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার মদন ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়া গ্রামের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা রহিছ মিয়ার পক্ষের সঙ্গে একই গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা তাজুল ইসলামের বিরোধ চলে আসছিল।

এ নিয়ে কোর্ট ও থানায় কয়েকটি মামলা হয়েছে। সোমবার রাতে তাজুল ইসলামের গ্রুপের লোকজন রহিছ মিয়া পক্ষের লোকজনের নামে মদন থানায় একটি ইভটিজিংয়ের অভিযোগ দায়ের করে। এর জেরে মঙ্গলবার সকালে দক্ষিণপাড়া ঈদগাহ মাঠের পাশে দুপক্ষের মধ্যে দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এ সংবাদ পেয়ে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ১০ রাউন্ড ফাঁকা রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে এলাকায় থমথমে ভাব বিরাজ করছে। এ ঘটনায় এলাকায় অতিরিক্ত দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মদন থানার এসআই মমতাজ উদ্দিন জানান, সোমবার মুক্তিযোদ্ধা তাজুলের চাচাতো ভাই তবুজ মিয়া, রহিছ মিয়ার পক্ষের আক্কু মিয়ার ছেলে আরাফাতের নামে ইভটিজিংয়ের একটি অভিযোগ দায়ের করেন। তাছাড়া ওই পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে।

পূর্বশত্রুতার জেরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে আমাদের ধারণা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১০ রাউন্ড ফাঁকা রাবার বুলেট ছুড়ে। বর্তমানে এলাকায় দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।