ইব্রাহীম সোহানসহ ১৬ জন স্থায়ীভাবে বহিষ্কার

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৫ এপ্রিল , ২০১৬ সময় ১১:২৩ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাছিম আহমেদ সোহেল হত্যা মামলার আসামি ইব্রাহীম সোহানসহ ১৬ জনকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সেইসঙ্গে আরও সাত শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার এ কথা জানিয়েছেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আহমদ রাজীব চৌধুরী।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদে গত ২৯ মার্চ সংঘর্ষের পর তদন্তের প্রেক্ষিতে ১৬ জনকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়েছে।

এই ঘটনায় নিহতের বাবার করা হত্যা মামলার প্রধান আসামি ইব্রাহীম সোহান, কাজী জয়নাল আবেদীন, সাইফ উদ্দিন, আবু জাহেদ উজ্জ্বল, নিজাম উদ্দিন আবিদ ও নুরুল ফয়সাল স্যাম এমবিএর ছাত্র। আশরাফুল ইসলাম, ওয়াহিদুজ্জামান নিশান, জিয়াউল হায়দার চৌধুরী, এস এম গোলাম মোস্তফা, তামিম উল আলম, রাশেদুল হক ইরফান ও নাজমুল হক বিবিএর ছাত্র। বাকিদের মধ্যে আবু ফয়েজ এলএলএমের এবং সাইফুল মোহাম্মদ তারেক ও সাইফুল ইসলাম সাকিব এলএলবির ছাত্র।

এছাড়া আরও সাত শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে জানিয়ে প্রক্টর বলেন, পাশাপাশি কেন তাদের স্থায়ী বহিষ্কার করা হবে না তা ১০ এপ্রিলের মধ্যে জানতে চেয়ে নোটিস দেওয়া হয়েছে।

এরা হলেন- মোজাহিদুল ইসলাম, মোহাম্মদ মাসুক কালাম, কায়সারুল আলম, মনির আহমদ, কাজী মোহাম্মদ লিয়াকত, নিজামুল গালিব ইমন ও কাজী মো. আশরাফ সায়েদ; এরা সবাই বিবিএর ছাত্র।

বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য, সমাজবিজ্ঞানী ড. অনুপম সেন বলেন, হত্যার মত যারা অপরাধ করেছে দেশের প্রচলিত আইনে তাদের বিচারে পাশপাশি আমরা প্রতিষ্ঠান থেকে তাদের বহিস্কার করেছি। সোহেল খুনের ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটির সুপারিশক্রমে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার আবু তাহের জানিয়েছেন, হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত সব আসামিকে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। সেই সঙ্গে তাদের এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রদত্ত সব ডিগ্রিও বাতিল করা হয়েছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত প্রোগ্রামগুলো থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

তবে, এজাহারভুক্ত আসামিদের মধ্যে কেউ যদি অভিযোগ থেকে খালাস পেয়ে নির্দোষ বা চার্জশিট থেকে বাদ গেলে তার আবেদনের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রয়োগকৃত শাস্তি পুনর্বিবেচনা করতে পারবেন। তিনি জানান, সাবেক ছাত্র সাইকুল মোহাম্মদ তারেক এবং মো. নাজমুল হক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাপ্ত এলএলবি (অনার্স) এবং বিবিএ ডিগ্রি বাতিলের ব্যাপারে আদালতের রায়ের পর কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেবে। শাস্তিপ্রাপ্ত ছাত্ররা পরবর্তীতে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্যকোনো প্রোগ্রামে অধ্যয়নের জন্য ভর্তি হতে পারবে না। মামলা চলাকালীন সময়ে এই সব ছাত্রের এনরোলমেন্ট, ক্লাস, পরীক্ষা, সার্টিফিকেট এবং ট্রান্সক্রিপ্টের উত্তোলন প্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে বলে জানান রেজিস্ট্রার আবু তাহের।

গত ২৯ মার্চ নগরীর ওয়াসার মোড়ে বেসরকারি প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য অনুষদে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন নিয়ে বিরোধের জের ধরে ছুরিকাঘাতে নিহত হন নাসিম আহমেদ সোহেল।

পরদিন সোহেলের বাবা আবু তাহের তার ছেলেরই এক সময়ের বন্ধু ইব্রাহীম সোহানসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে চকবাজার থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে ভিডিও ফুটেজে দেখে আসামিদের চিহ্নিত করে পুলিশ।