ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন অর্থনৈতিক উন্নয়নে কাজ করছে

প্রকাশ:| বুধবার, ১৯ জুলাই , ২০১৭ সময় ১০:২২ অপরাহ্ণ

“ইইউ হরাইজন ২০২০-অপরচ্যুনিটিস ফর বাংলাদেশ” শীর্ষক সেমিনার

চট্রগ্রাম চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এবং ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন’র যৌথ আয়োজনে “ইইউ হরাইজন ২০২০ ঃ অপরচ্যুনিটিস ফর বাংলাদেশ” শীর্ষক সেমিনার ১৯ জুলাই বিকেলে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত হয়। ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন কর্তৃক এ প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষি, খাদ্য, স্বাস্থ্য, মৎস্য চাষ, পানি সম্পদ, জলবায়ু পরিবর্তন এবং জ্বালানী খাতে গবেষণার জন্য অর্থায়নের পদ্ধতি সম্পর্কে সংশ্লিষ্টদের অবহিত করার লক্ষ্যে এ সেমিনার আয়োজন করা হয়। চট্রগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত ও হেড অব দ্যা ডেলিগেশন পিয়্যারে মায়াউদোন (চরবৎৎব গধুধঁফড়হ)। সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, চুয়েট’র ভিসি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম, সাউদার্ণ ইউনিভার্সিটির প্রো-ভিসি প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার এম. আলী আশরাফ, তুর্কির অনারারী কনস্যুল জেনারেল সালাহ্উদ্দীন কাসেম খান, জাপানের অনারারী কনস্যুল জেনারেল মোঃ নুরুল ইসলাম, ইতালীর অনারারী কনস্যুল মীর্জা সালমান ইস্পাহানী, ফিলিপিনস্’র অনারারী কনস্যুল মোহাম্মদ এ আউয়াল, দক্ষিণ আফ্রিকার অনারারী কনস্যুল মোঃ সোলায়মান আলম শেঠ, চেম্বার পরিচালকবৃন্দ এ. কে. এম. আক্তার হোসেন, কামাল মোস্তফা চৌধুরী, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (আলমগীর), মোহাম্মদ হাবিবুল হক, এম. এ. মোতালেব, মোঃ জহুরুল আলম, মাহবুবুল হক চৌধুরী (বাবর), ছৈয়দ ছগীর আহমদ, মোঃ রকিবুর রহমান (টুটুল), অঞ্জন শেখর দাশ, মোঃ জাহেদুল হক, মোঃ শাহরিয়ার জাহান ও মোঃ আবদুল মান্নান সোহেল, সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি এম. এ. ছালাম, সাবেক পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ ও হাবিব মহিউদ্দিন, সোনালী ব্যাংকের জিএম আলী কাইয়ুম, এ্যাব্সেটা হেড অব মার্কেটিং-এর নীল রতন দাশগুপ্ত, চৌধুরী ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল’র পরিচালক মোঃ ইউছুপ চৌধুরী এবং আলম বিজনেস কর্পোরেশন’র জিএম মোঃ হাবিবউল্লাহ-সহ বিভিন্ন সেক্টরের ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কাউন্সিলর এন্ড হেড অব রিসার্চ এন্ড ইনোভেশন তানিয়া ফ্রেডরিক ও উপদেষ্টা ড. বিবেকধাম।

রাষ্ট্রদূত পিয়্যারে মায়াউদোন বলেন,বাংলাদেশ এমডিজি অর্জনের পর এসডিজি অর্জনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন এদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যসহ অর্থনৈতিক উন্নয়নে এক সাথে কাজ করছে। বাংলাদেশ ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন বিজনেস কাউন্সিলের মাধ্যমে এক্ষেত্রে আরো উন্নয়ন সম্ভব হবে। হরাইজন ২০২০ ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন বাংলাদেশসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে গবেষণার মাধ্যমে নতুন নতুন পণ্য ও সেবা উৎপাদনের ক্ষেত্রে ৮০ বিলিয়ন ইউরো অর্থায়ন করছে। তিনি এ দেশের বিভিন্ন কোম্পানী, এনজিও, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিগতভাবে আগ্রহী গবেষকরা নতুন নতুন পণ্য ও সেবা উৎপাদনের মাধ্যমে নতুন দিগন্তের সূচনা করতে সক্ষম হবেন বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন-বাংলাদেশের রপ্তানি আয়ের ৫৫% ইউরোপ থেকে আসে। জিএসপি সুবিধার কারণে আমরা এখন দ্বিতীয় বৃহত্তম আরএমজি রপ্তানিকারক দেশ। ট্রেড পলিসি নির্ধারণ, কর্মদক্ষ ও পরিবেশবান্ধব শিল্পায়নসহ বিভিন্ন খাতে বাংলাদেশের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের অবদান অপরিসীম। তিনি হরাইজন ২০২০ এর মাধ্যমে দেশীয় প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিগত গবেষণা অনেক বেশী সমৃদ্ধ হবে বলে মনে করেন যা পক্ষান্তরে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, জীবনমান উন্নয়ন এবং প্রতিযোগিতামূলক সক্ষমতা অর্জনে ভূমিকা রাখবে।

 


আরোও সংবাদ