ইউপি মেম্বারের বিরুদ্ধে বোনের কাছ থেকে চাঁদা দাবীর অভিযোগ

প্রকাশ:| বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর , ২০১৫ সময় ০৮:১৯ অপরাহ্ণ

অভিযোগ

শফিউল আলম, রাউজানঃ রাউজানের পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের মেম্বার ইমতিয়াজ হোসেন সুমনের বিরুদ্ধে আপন বোনের কাছ থেকে দশ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবীর অভিযোগ। রাউজান উপজেলার পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের ছবিল খাঁন ডাক্তারের বাড়ীর বাসিন্দা এনামুল হক মুন্সীর পুত্র স্থানীয় মেম্বার ইমতিয়াজ হোসেন সুমন তার আপন বোন আয়শা সুলতানা নাজমার কাছ থেকে দশ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করছে বলে অভিযোগ করেন আয়শা সুলতানা নাজমা। আয়শা সুলতানা নাজমা অভিযোগ করে বলেন- গত ২০০৮ সালে তার মাতা নুর জাহান বেগমকে বেদম প্রহার করে হত্যা করে তরিগরি করে নুর জাহান বেগমের লাশ দাফন করে ফেলে। আয়শা সুলতানা নাজমা রাউজানের বিনাজুরী ইউনিয়নের কাগতিয়া বাজারের পার্শ্বে প্রবাসী স্বামী মজিবুর রহমানের টাকায় ক্রয় করা সম্পত্তিতে নুর জাহান ম্যানশন নামে একটি পাকা ভবন নির্মাণ করে। ঐ ভবন নির্মাণ করার সময়ে ইমতিয়াজ হোসেন সুমন মেম্বার বাধা সৃষ্টি করে। এক পর্যায়ে দশ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে ইমতিয়াজ হোসেন সুমন মেম্বার তার আপন বোন আয়শা সুলতানা নাজমার কাছ থেকে। আয়শা সুলতানা নাজমার ছোট বোন রহিমা আকতার সুমিকে নোয়াপাড়া ইউনিয়নের সামমহালদার পাড়া গ্রামের আবদুর রহমানের কাছে বিবাহ দেয়। বিবাহের পর আবদুর রহমান সুমনকে তালাক দিয়ে রহিমা আকতার সুমি তার পিতার বাড়ীতে চলে আসলে গত চার মাস পূর্বে ইমতিয়াজ হোসেন সুমন মেম্বার তাকে বেদম ভাবে প্রহার করে। এবং তালাক দেওয়া স্বামীর বাড়ী থেকে নিয়ে আসা আসবাবপত্র পুকুরে ফেলে দেয়। এই সময়ে রহিমা আকতার সুমির বড় বোন আয়শা সুলতানা নাজমা সংবাদ পেয়ে বাড়ীতে এসে আহত অবস্থায় রহিমা আকতার সুমিকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানষিক ও ব্যাধি বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ আবদুল মোতালেব এর কাছে চিকিৎসা করে। বর্তমানেও রহিমা আকতার সুমি ডাঃ আবদুল মোতালেব এর কাছে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। ইমতিয়াজ হোসেন সুমন মেম্বারের দাবী করা দশ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেওয়ায়, গত ২২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সুমন মেম্বারের ভাই এরশাদ এর স্ত্রী হাসনাহেনাকে মারধর করে আহত করেছে বলে সুমন মেম্বারের পিতা এনামুল হক মুন্সী বাদী হয়ে রাউজান থানায় মামলা করেছে। ঐ মামলায় আয়শা সুলতানা নাজমা ও তার বোন রহিমা আকতার সুমিকে আসামী করা হয়েছে। আয়শা সুলতানা নাজমা আরো অভিযোগ করে বলেন- তাদেরকে মারধর করে গত মঙ্গলবার ইমতিয়াজ হোসেন সুমন মেম্বার উল্টো তাদের বিরুদ্ধে পিতা এনামুল হক মুন্সীকে বাদী করে তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে। রাউজান থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান- পিতা এনামুল হক মুন্সীর দায়ের করা মামলা ও তার মেয়ে আয়শা সুলতানা নাজমার দায়ের করা একে অপরের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। তা তদন্ত করে প্রকৃত ঘটনার রহস্য উদঘাটন করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরোও সংবাদ