ইউপি নির্বাচন: লক্ষ্মীপুরে আ’লীগ সমর্থিত প্রার্থী জয়ী

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর , ২০১৫ সময় ০৯:৪২ অপরাহ্ণ

ইউপি নির্বাচনলক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চররমিজ ও চরগাজী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত দুই প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে তাদেরকে বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। চর রমিজ ইউনিয়নে গোলাম সারোয়ার (তালগাছ প্রতিকে) ১৩ হাজার ১৬৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি রশিদ উদ্দিন আব্বাস (অটোরিক্সা প্রতিক) পেয়েছেন ১০৪০ভোট। চরগাজি ইউনিয়নে তাওহীদুল ইসলাম সুমন (তালগাছ প্রতিক) দশ হাজার ৩৭৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম রতিদ্বন্দ্বি পেয়েছেন মাহফুজুল হক (টুপি প্রতিক) পেয়েছেন এক হাজার ৪৯ ভোট।

নির্বাচনী ফলাফলের সত্যতা নিশ্চিত করে রামগতি উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটানিং অফিসার জাকির মাহমুদ জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টা থেকে বিকেলে ৪টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ শেষে এ ফলাফল ঘোণিা করা হয়। নির্বাচনে চর রমিজ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে চার জন, সদস্য পদে ৩৭ জন ও সংরক্ষিত (মহিলা) সদস্য পদে ১৭ জন ও চরগাজী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ছয় জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪৪ জন ও সংরক্ষিত (মহিলা) সদস্য পদে ১৩ জন প্রার্থী ছিলেন। মোট ভোটার ২৩ হাজার ২০১ জন। ১১ হাজার ৭৪৪ জন পুরুষ এবং ১১ হাজার ৪৫৭ জন মহিলা ভোটার রয়েছে। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১০টি।

উল্লেখ্য, ভোট শুরু আগের দিন বুধবার রাতে জেলা শহরের একটি পত্রিকা কার্যালয়ে পুলিশী হয়রানি, নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ এনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী চররমিজ ইউনিয়নের শরাফ উদ্দিন আজাদ সোহেল ও চরগাজী ইউনিয়নের মীর আকতার হোসেন বাচ্চু সংবাদ সম্মেলন ডেকে ভোট বর্জন করেছেন।

অন্যদিকে, উৎসবমুখর পরিবেশ থাকার পরও নির্বাচন ও সরকারের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ করতে বিএনপি প্রার্থীরা ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এ নির্বাচন বর্জন করেছেন বলে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছে রামগতি উপজেলা যুবলীগ। বুধবার রাতে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন হেলাল লক্ষ্মীপুর শহরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন।

লক্ষ্মীপুরের সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. নাসিম মিয়া জানান, আইনশৃংখলা রক্ষার্থে নির্বাচনী দুই ইউনিয়নে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, ১৯৯৭ সালে ওই দুই ইউনিয়নে সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল। নোয়াখালির সুবর্ণচর উপজেলার চরজব্বর ও চর জুবলী ইউনিয়নের সঙ্গে সীমানা বিরোধ সংক্রান্ত মামলার কারণে ২০০২ সালে নির্বাচন কমিশন ওই দুই ইউনিয়নে নির্বাচন স্থগিত রাখে। পরে ২০১১ সালে নির্বাচনের উদ্যোগ নেয়া হলে উচ্চ আদালতের নির্দেশে পুনরায় নির্বাচন স্থগিত করা হয়। গত ২৭ আগস্ট নির্বাচন কমিশন ওই দুই ইউনিয়নে নির্বাচন করার জন্য প্রজ্ঞাপণ জারি করে। প্রজ্ঞাপণের নির্দেশনা অনুযায়ী গত ২ সেপ্টেম্বর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়।


আরোও সংবাদ