ইউনাইটেডের ভারপ্রাপ্ত কোচ গিগস

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২২ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ১০:৫৫ অপরাহ্ণ

ইংলিশ কি ইউরোপিয়ান, ফুটবলে কোচের ওপর খড়্গ নেমে আসে দ্রুতই। ব্যতিক্রম ছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। সেই ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে এক মৌসুমও পূর্ণ করতে পারলেন না ডেভিড ময়েস। যে ক্লাবে কোচ হিসেবে অসাধারণ নেতৃত্ব দিয়ে ইউনাইটেডের নজর কেড়েছিলেন, সেই এভারটনের কাছে গত ম্যাচে হেরে সর্বনাশের চূড়ান্ত হলো। গতকাল রাতে ইংলিশ ফুটবলে যে গুঞ্জনটা ছড়িয়ে পড়েছিল, সেটাই সত্যি হলো। চাকরি হারালেন ডেভিড ময়েস। ভারপ্রাপ্ত কোচ হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন ইউনাইটেডের দীর্ঘ দিনের সৈনিক রায়ান গিগস।
১৯৮৭ সালে ইউনাইটেডের যুবদলে পা রাখার পর থেকে প্রায় তিন দশক ধরে এই ক্লাবের সঙ্গে সম্পর্ক গিগসের। অ্যালেক্স ফার্গুসন চলে যাওয়ার পর ময়েসকে নিয়োগ দেওয়ার পাশাপাশি গিগসকেও সহকারী কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। আপাতত এই ৪০ বছর বয়সীর কাঁধেই দায়িত্ব থাকছে মৌসুমের বাকিটা পথ পাড়ি দেওয়ার। জন্মদিনের চার দিন পরই ছাঁটাইয়ের খবর শুনতে হলো ময়েসকে।
এক বিবৃতিতে ইউনাইটেড বলেছে, ‘ম্যানেজারের পদ থেকে ডেভিড ময়েস সরে যাওয়ার পর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ক্লাবের সবচেয়ে সমৃদ্ধ ক্যারিয়ারের খেলোয়াড় রায়ান গিগসকেই আপত্কালীন কোচের পদে নিয়োগ দিচ্ছে। স্থায়ী কোনো কোচ নিয়োগের আগ পর্যন্ত তিনিই দায়িত্ব পালন করবেন।’
ময়েসকেও ‘ধন্যবাদ’ জানানো হয়েছে গত দশ মাসে ক্লাবে তাঁর ‘অবদানে’র জন্য। যদিও ইউনাইটেডেরই সাবেক তারকা গ্যারি নেভিল মনে করেন, ময়েসের সঙ্গে অন্যায় করা হয়েছে। তাঁকে আরও সময় দেওয়াই উচিত ছিল বলে মনে করেন তিনি, ‘কাউকে তিন, চার কিংবা ছয় বছরের জন্য নিয়োগ দিয়ে ১০ মাসের মাথায়ই সরিয়ে ফেলার পেছনের যুক্তিটা আমি বুঝি না। এই মৌসুমে আমাদের খেলার মান খুবই খারাপ ছিল। ফলাফলও খুব বাজে হচ্ছিল। আমি মোটেও খেলা উপভোগ করছিলাম না। আমি নিশ্চিত, ময়েস নিজেও তা উপভোগ করছিলেন না।’

ব্যর্থতার দায় একা ময়েসের নয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাঁকেই বলির পাঁঠা বানানো হলো। তবে অনেকে এ-ও মনে করেন, ময়েস দলকে ঠিকমতো অনুপ্রাণিত করতে পারছিলেন না। সেরাটা বের করে আনা যাচ্ছিল না। এ ক্ষেত্রে কোচের পদে পরিবর্তন আনাই সবচেয়ে ভালো উপায়।

ময়েসের এই টালমাটাল সময়টা ক্লাবকে ফিরিয়ে নিয়ে গেল ১৯৬৯ থেকে ১৯৭১ সালের সময়টায়, যখন ২৪ বছর দায়িত্ব পালন করে ম্যাট বুসবি অবসর নেওয়ার পর ক্লাবও এমন টালমাটাল সময়ের মধ্যে পড়ে যায়। দেড় বছর পর বুসবি আবার দায়িত্বে ফিরতে বাধ্য হন। ২৬ বছর পর অবসর নেওয়া অ্যালেক্স ফার্গুসনও কি ফিরবেন? সেই সম্ভাবনা অবশ্যই নিতান্তই ক্ষীণ!