আল কায়েদার সঙ্গে জামায়াত-হেফাজত যুক্ত-রাশেদ খান মেনন

প্রকাশ:| রবিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৮:৫৫ অপরাহ্ণ

আল কায়েদা প্রধান আইমান আল জাওয়াহিরির বক্তব্যের মাধ্যমে আর্ন্তজাতিক সন্ত্রাসবাদী ষড়যন্ত্রের সঙ্গে হেফাজতে ইসলাম এবং জামায়াত ইসলাম যুক্ত থাকার বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

রোববার সকালে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর পরির্দশন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী এমন্তব্য করেন।

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘আল কায়েদা নেতা জাওয়াহিরির বক্তব্য সত্য, অসত্য যাই হোক না কেন তাতে আমরা বিস্মিত নই। বাংলাদেশকে দীর্ঘদিন ধরেই আর্ন্তজাতিক ধর্মীয় সন্ত্রাসবাদের লীলাক্ষেত্র হিসেবে তৈরির চেষ্টা চলছে। জাওয়াহিরির বক্তব্যে প্রমাণ হয়েছে এ চেষ্টা এখনও অব্যাহত আছে। জাওয়াহিরির হুমকির মধ্য দিয়ে হেফাজতে ইসলাম ও জামায়াতের চক্রান্তের বিষয়টি উন্মোচিত হল।’

মেনন বলেন, ‘আল কায়েদার নেতা জাওয়াহিরির বক্তব্যে প্রমাণ হয়েছে ওই জঙ্গীবাদী তৎপরতার সঙ্গে বৈদেশিক সম্পর্ক আছে। জাওয়াহিরির আহ্বান এবং জামায়াত ও হেফাজতের বক্তব্য এক ও অভিন্ন। দেশে বিভিন্ন সময়ে আর্ন্তজাতিক সন্ত্রাসবাদী ষড়যন্ত্রের যেসব ঘটনা ঘটেছে তার সঙ্গে মূলত বিএনপির নেত্রীও যুক্ত আছেন।’

মন্ত্রী বলেন, ‘সবচে দুঃখজনক ও দুর্ভাগ্যজনক যে সেই সময়ে আমাদের যে বিরোধী দল ছিল, তারা এটিকে সমর্থন যুগিয়েছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কৌশলে তারা পরাজিত হওয়ার কারণে তারা এখন জাওয়াহিরীকে দিয়ে আর্ন্তজাতিক সন্ত্রাসীর ভয় দেখানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু বাংলাদেশে আল কায়দা কিছু করতে পারবে বলে আমি মনে করি না।’

মেনন আরো বলেন, ‘জাওয়াহিরির বক্তব্যে স্পষ্ট হয়েছে বাংলাদেশের স্বাধীনতাও তাদের কাছে এখনও গ্রহণযোগ্য নয়। একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা যে যুক্তি দিয়েছিল এখনও তাদের কাছে সেই যুক্তিই গ্রহণযোগ্য। আন্তর্জাতিকভবে এদেশে সন্ত্রাসবাদী ষড়যন্ত্রের যত চেষ্টাই হোক না কেন, বাংলাদেশের জনগণ কখনোই সন্ত্রাসবাদকে গ্রহণ করবেনা।’

এরপর মন্ত্রী বিমান বন্দর পরিদর্শন শেষে নগরীর স্টেশন রোডের নির্মাণাধীন পর্যটন কর্পোরেশনের মোটেল সৈকত কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেন। এরপর চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে ওয়ার্কার্স পার্টি ও বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এসময় নেতকার্মীরা তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু হানিফ, জেলা যুব মৈত্রীর সভাপতি শরীফ চৌহান, সাধারণ সম্পাদক এস এম আবু রায়হান, ছাত্র মৈত্রীর নেতা আশীষ ভৌমিক উপস্থিত ছিলেন।