আলেম সমাজকে জনস্বার্থ নিয়েও কাজ করতে হবে- আহমদ শফী

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৮ নভেম্বর , ২০১৪ সময় ১০:৩৯ অপরাহ্ণ

মোঃ মহনি উদ্দীন,হাটহাজারী,চট্টগ্রাম।।
নাস্তিক্যবাদিদের ইসলাম বিদ্বেষ, আল্লাহ-রাসূল ও ইসলামের অবমাননা এবং দেশ ও সমাজ থেকে নৈতিকতা-আদর্শহীনতা প্রতিরোধে আলেম সমাজ ও তৌহিদী জনতার ঐক্যবদ্ধ মজবুত অবস্থানের উপর গুরুত্বারোপ করেছেন হেফাজতে ইসলামের আমীর এবং এশিয়ার বিখ্যাত ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফী। তিনি বলেন, ইসলাম ও মুসলিম স্বার্থের পাশাপাশি দেশের আলেম সমাজকে জনস্বার্থ নিয়েও কাজ করতে হবে। জনগণের দুঃখ-দুর্দশা ও সামাজিক শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায়ও আমাদের জোরালো ভূমিকা রাখতে হবে। তিনি বলেন, শাহবাগী নাস্তিক্যবাদিদের বিষছোঁয়ায় সরকারের কিছু কর্মকর্তার মুখেও ইসলাম বিদ্বেষ প্রকাশ পাচ্ছে। দেশের মূল সমস্যা থেকে জনদৃষ্টিকে অন্যদিকে ঘুরানোর জন্য থেমে থেমে কথিত জঙ্গীবাদের ইস্যুকে আলোচনায় আনা হচ্ছে। মুরতাদ আব্দুল লতিফ সিদ্দিকির চরম ইসলাম অবমাননার পর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত কর্তৃক ঘুষের পক্ষে সাপাই গাওয়ায় জনমনে উদ্বেগ বেড়ে গেছে। তিনি বলেন, ঘুষ শুধু ইসলামী আইনে নয়, সারা বিশ্বের প্রচলিত মানব রচিত আইনেও মারাত্মক অপরাধ। অথচ একজন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী কী করে ঘুষের পক্ষে সাপাই গাইতে পারেন? সরকারের গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাদের লাগামহীন কথাবার্তার পাশাপাশি দেশের আইন-শৃঙ্খলার চরম অবনতি এবং সমাজে নীতি-নৈতিকতাহীনতা ও বেহায়াপনার ছড়াছড়িতে দায়িত্বশীল নাগরিকগণ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। মূলতঃ দেশ কোন দিকে এগুচ্ছে এবং কেন এমন হচ্ছে, তা বিশ্লেষণ করে সঠিক পদক্ষেপ না নিলে আমাদের সামনে কঠিন দুর্দশা অপেক্ষা করছে।
(১৮ নভেম্বর) বেলা ১১টায় ফেনী জেলা হেফাজতে ইসলামের ১২ সদস্যের এক প্রতিনিধি দল আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সাথে তাঁর কার্যালয়ে এক বৈঠকে মিলিত হলে হেফাজত আমীর উপরোক্ত কথা বলেন। ফেনী জেলা হেফাজতে ইসলামের সভাপতি মাওলানা আবুল কাসেম এর নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ছিলেন, সেক্রেটারী মুফতী রহীমুল্লাহ, মাওলানা আফজালুর রহমান, মাওলানা মুহাম্মদ কাসেম, মাওলানা নূরুল হুদা প্রমুখ।
হেফাজত আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী উপস্থিত ফেনী জেলার হেফাজত নেতৃবৃন্দকে ঐক্যবদ্ধ সুদৃঢ় অবস্থানের প্রতি গুরুত্বারোপ করে বলেন, ওলামা-মাশায়েখ ও তৌহিদী জনতার সুদৃঢ় ঐক্যবদ্ধ অবস্থান অক্ষুণœ রাখতে পারলে আল্লাহ-রাসূল, ইসলাম, উলামা-মাশায়েখ ও মাদ্রাসার বিরুদ্ধে কোন অপতৎপরতা চালাতে ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিক্যবাদি কোন অপশক্তিই সাহস করবে না। সুতরাং সর্বাবস্থায় আমাদের অরাজনৈতিক ভূমিকাকে সামনে রেখে ঐক্যবদ্ধ অবস্থান ধরে রাখতে হবে। তিনি বলেন, ইসলাম বিদ্বেষী ও নাস্তিক্যবাদি শক্তি হেফাজতে ইসলামের বৃহৎ ঐক্য ও অগ্রযাত্রায় ভীত হয়ে উলামা-মাশায়েখ ও তৌহিদী জনতার ঐক্যকে বিনষ্ট করার জন্য নানা চক্রান্ত ও অপপ্রচার চালানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি সকলকে এ ধরণের বিভ্রান্তিকর সংবাদ ও অপপ্রচারে কান না দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, দেশে ও বিদেশে ইসলাম বিরোধী নাস্তিক্যবাদি শক্তি দিন দিন তাদের অবস্থান জোরদার করছে। সুতরাং এদের মোকাবেলায় ঈমান-আক্বীদা ও দ্বীন-ইসলামের সুরক্ষায় উলামা-মাশায়েখ ও তৌহিদী জনতার ঐক্যকে সুদৃঢ় রাখতে আমাদেরকে আরো বেশী সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে।
হেফাজত আমীরের প্রেস সচিব মাওলানা মুনির আহমদ জানান, প্রতিনিধি দলের নেতৃবৃন্দ হেফাজত আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে ফেনী জেলা হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক বিভিন্ন কর্মতৎপরতা সম্পর্কে অবহিত করেন। তারা হেফাজত আমীরকে দৃঢ়ভাবে জানান যে, ভবিষ্যতে দেশ ও মুসলিম জাতির যে কোন প্রয়োজনে হেফাজত আমীর যখনই আহ্বান জানাবেন, তারা সর্বোচ্চ ত্যাগের বিনিময়ে ঐক্যবদ্ধভাবে তা বাস্তবায়নে ঝাঁপিয়ে পড়বেন। হেফাজত আমীর প্রতিনিধি দলের কথা মনোযোগ দিয়ে শোনেন এবং ফেনী জেলায় হেফাজতের বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়নে তাদের দৃঢ় অবস্থানে গভীর সন্তোষ প্রকাশ করেন। আল্লামা শাহ আহমদ শফী আগামী ২ মার্চ ফেনীতে জেলা হেফাজতে ইসলাম আয়োজিত শানে রেসালাত সম্মেলনে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ অংশগ্রহণে সম্মতি প্রদান করেন। তিনি জেলা সভাপতিকে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে শানে রেসালাত সম্মেলন আয়োজনের পাশাপাশি সাংগঠনিক কমিটিসমূহকে আরো গতিশীল করে ইসলাম ও নৈতিকতা বিরোধী সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেন। প্রতিনিধি দলটি হেফাজত আমীরের সাথে সাক্ষাৎ শেষে সংগঠনের কেন্দ্রীয় মহাসচিব আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরীর সাথেও সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন এবং মহাসচিব ২ মার্চ ফেনীর শানে রেসালত সম্মেলনে অংশগ্রহণের সম্মতি দেন।