আমি আগে যেমনটি ছিলাম, এখনও সে রকমই আছি-ফারহানা মিলি

প্রকাশ:| বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর , ২০১৩ সময় ০৯:২২ অপরাহ্ণ

ফারহানা মিলি1‘মনপুরার পর আমার কাছে অনেক প্রস্তাব এসেছে। কিন্তু আমি তা গ্রহণ করিনি। কারণ আমার পছন্দ হয়নি। আমি আমার পছন্দের কাজ করতে চাই বলে সময় নিচ্ছি। যদি এমনও হয় যে, আমার পছন্দের কাজটির জন্য আমাকে আরও পাঁচ বছর অপেক্ষা করতে হবে—আমি তাই করব। ভালো একটি কাজ করার পর আমি হুলস্থুল করে পরের কাজটি করতে চাইনি। এটা শুধু চলচ্চিত্রের বেলাতেই নয়, নাটকের কাজ নিয়েও আমার ভাবনা একই রকম। একসঙ্গে আমার চার-পাঁচটি সিরিয়ালে কাজ করতে হবে, টাকা উপার্জন করে আমাকে গাড়ি-বাড়ি বানাতে হবে, আমাকে অন্যরকম করে ভাবতে হবে—আমি এই ভাবনাগুলোতে কখনোই পাত্তা দেইনি’—বললেন মনপুরা চলচ্চিত্রখ্যাত অভিনেত্রী ফারহানা মিলি। সাধারণত দেখা যায়, বড় কোনো সাফল্য পেলে আমাদের তারকাদের অনেকেই মাথা ঠিক রাখতে পারেন না। কিন্তু এ ক্ষেত্রে মিলি ব্যতিক্রম। এ প্রসঙ্গে তিনি বললেন, ‘মনপুরার সাফল্য আমার মধ্যে কোনো পরিবর্তন এনেছে বলে আমি মনে করি না। আমি আগে যেমনটি ছিলাম, এখনও সে রকমই আছি। আমি সব সময়ই নিজের চাহিদাটাকে নিয়ন্ত্রণে রেখেছি। মনপুরার পর আমি আমার চাহিদা বাড়াইনি। আর কখনও বাড়াতেও চাই না। আমি আমার কাজটাকে বড় করে দেখি, এর সাফল্যকে বড় করে দেখতে চাই না। নিজের কাজ নিয়ে আমি বরাবরই খুঁতখুঁতে স্বভাবের। আমার মনে হয়, এটাই আমাকে ভালো কাজ করিয়ে দেয়। আমি বেছে বেছে কাজ করছি। এভাবেই পথ চলতে চাই।’ মিলির এই আলাদা চিন্তা যে শুধু নাটক বা চলচ্চিত্র নিয়েই, তা নয়। বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজের সময়ও এভাবেই ভাবেন তিনি। তার কাছে প্রায়ই এ মাধ্যমে কাজের প্রস্তাব আসে। কিন্তু তিনি গতানুগতিক বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজ করতে রাজি নন। তার জবানিতে, ‘এখন আমার কাছে বিজ্ঞাপনে কাজের প্রস্তাব এলে আমি দেখি নতুন কাজটিতে কতটা নতুনত্ব রয়েছে। তবে দুঃখের বিষয় হচ্ছে, আমার কাছে আসা প্রস্তাবগুলো আমাকে বরাবরই হতাশ করে। ফলে আমি নতুন কোনো কাজে নিজেকে ইচ্ছে থাকলেও জড়াতে পারিনি। যে কাজ আমাকে সন্তুষ্ট করতে পারবে না, আমি সে কাজ করে কষ্ট পেতে চাই না।’
শিডিউল নিয়ে এ পর্যন্ত কোনো পরিচালককে ফাঁসিয়ে দেয়ার কাজটিও করেননি ফারহানা মিলি। ফলে নির্মাতারাও তাকে নিয়ে কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। তবে মিলি সব পরিচালকের সঙ্গে কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না। যেসব নির্মাতার সঙ্গে তার বনিবনা ভালো, তিনি কেবল তাদের কাজগুলোই বেশি করেন। এক ঘণ্টার কাজ করে অভিজ্ঞতা নেই—এমন নির্মাতাদের সিরিয়ালে মিলি সাধারণত কাজ করেন না। ‘আমি আমার পরিচিত নির্মাতাদের সঙ্গেই বেশি কাজ করি। তার কারণ, আমি কী চাই তারা তা বোঝেন, আবার তাদের চাওয়াটাও আমি বুঝি। নতুনদের কাজ করতে গিয়ে আমাকে মাঝে মধ্যে বিপদেও পড়তে হয়েছে। দেখা গেল, কোনো নাটকের গল্প ভালো ও এতে আমার চরিত্রটিও সুন্দর দেখে নতুন কারও কাজ করতে গেলাম। শুটিংয়ের সময় দেখলাম পরিচালক পুরোপুরি গোছানো নন। কাজটি করতে গিয়ে তিনি নানা ঝামেলায় পড়ছেন। ক্যামেরাম্যানটি হয়তো তেমন দক্ষ নন। গল্পটি যেমন, কাজটি তেমন হলো না। এসব কারণে আমি নতুনদের কাজ করার সময় এখন আগের চেয়ে বেশি সচেতন থাকি। তবে নতুনরা সবাই যে এমনটি করেন, তা নয়। তাদের কারও কারও সঙ্গে একটি কাজ করার পর মুগ্ধ হয়ে একই পরিচালকের পরের কাজটিও করেছি—সেটিও ঘটেছে।’ বললেন ফারহানা মিলি। নিজের অভিনয় ক্যারিয়ারে কাজের সংখ্যা খুব বেশি না হলেও মিলি এরই মধ্যে যে নাটকগুলোতে অভিনয় করেছেন, তার বেশকিছু দর্শকদের কাছে তাকে আলোচিত করেছে ভিন্ন মাত্রায়। তবে তার ব্যক্তিগত পছন্দের কাজের তালিকাটা অনেক ছোটই বলা যায়। প্রিয় কাজের গল্প বলতে গিয়ে একটু সময় নিলেন মনপুরার এই দর্শক-মন পোড়ানি। এরপর খুঁজে পাওয়ার ভঙ্গি করে তিনি বলেন, “সাজ্জাদ সুমনের দুটি কাজের কথা এই মুহূর্তে মনে পড়ছে। একটির নাম ‘চিলেকোঠার স্বপ্ন’, এটি এক ঘণ্টার নাটক। অন্যটি ‘অপরাহ্নের গল্প’, এটি টেলিফিল্ম। সুমন আনোয়ারের ‘পলাশের রঙ’ শিরোনামের একটি নাটকে কাজ করেছি। এই নাটকগুলোতে কাজ করে আমার ভীষণ ভালো লেগেছে।”
মা হওয়ার কারণে মাঝে অভিনয়ে একটু বিরতি নিয়েছিলেন ফারহানা মিলি। গতকাল গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরে তিনি শুটিং শুরু করেছেন শুভাশীষ সিন্হা রচিত ও সাঈদ রিংকু পরিচালিত এক ঘণ্টার নাটক ‘পিঞ্জরে বসিয়া শুকসারি’র। এই নাটকে তার বিপরীতে আছেন শহীদুজ্জামান সেলিম ও শতাব্দী ওয়াদুদ। এরপর মিলি আগামী ২০ সেপ্টেম্বর ইসরাফিল বাবুর রচনায় ও আবু রায়হান জুয়েলের পরিচালনায় টেলিফিল্ম ‘গল্পটা অন্যরকম হতে পারতো’-তে অভিনয় করবেন। এই টেলিফিল্মে তার বিপরীতে অভিনয় করবেন মনির খান শিমুল ও নাঈম। এদিকে গতকালই মিলি নতুন আরেকটি নাটকে কাজ করার জন্য এ মাসের শেষের দিকে পরিচালক তাজু কামরুলকে শিডিউল দিয়েছেন। মো. মাহফুজুর রহমানের গল্প অবলম্বনে তাজু কামরুল নির্মাণ করবেন ‘মুকুটহীন নবাব’ নাটকটি। এখানেও ফারহানা মিলি কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করবেন। বিরতির পর আবারও অভিনয়ে ফেরা প্রসঙ্গে ফারহানা মিলি বলেন, ‘সত্যিই মন থেকে চাইছিলাম দর্শকের কাছে আবারও ভালো কিছু কাজ নিয়ে ফিরি। সেভাবেই নিজেকে প্রস্তুত করছিলাম। এর মধ্যে অনেক স্ক্রিপ্টও হাতে এসেছিল। কিন্তু অনেক নাটক-টেলিফিল্মের গল্প ভালো লাগেনি আমার। তিনটি নাটক এবং টেলিফিল্মের গল্প সত্যিই অন্যরকম। তাই কাজগুলো করছি। আজ থেকে নতুন করে অভিনয়ে ফিরছি। সবার দোয়া চাই যেন আমি আমার আমিকে নতুন করে ভালোভাবে দর্শকের সামনে উপস্থাপন করতে পারি।’ উল্লেখ্য, মিলি সর্বশেষ তুহিন অবন্ত পরিচালিত ‘হেলিকপ্টার’ নাটকে অভিনয় করেন। গত বছর ২৫ নভেম্বর তিনি এক ছেলেসন্তানের মা হয়েছেন।