আমাদের প্রার্থী বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবেন-শাহাদাত

প্রকাশ:| রবিবার, ৫ এপ্রিল , ২০১৫ সময় ০৫:২২ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) সদ্য সাবেক মেয়র এম মনজুর আলমের পক্ষে মাঠে নামছেন ডা. শাহাদাত হোসেন।

দ্বিতীয়বারের মতো বিএনপি তথা ২০ দলীয় জোটের সমর্থন নিয়ে চসিক ভোট যুদ্ধে মনজুর আলমের প্রার্থীতা চূড়ান্ত হলে ক্ষোভে ফেটে পড়েন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সমর্থক-অনুসারীরা। নগর বিএনপির সভাপতি আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে তার চট্টগ্রামের বাসভবনের সামনে বিক্ষোভ করেন শাহাদাতের অনুসারী নগর ছাত্রদল ও যুবদলের নেতাকর্মীরা।

বিএনপির অপর ভাইস চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম বিএনপির অন্যতম কাণ্ডারি আবদুল্লাহ আল নোমানের প্রতিও ক্ষোভ প্রকাশ করেন ছাত্রদল-যুবদলের এ অংশটি। তবে শেষ পর্যন্ত দল সমর্থিত প্রার্থী মনজুর আলমের প্রতি পূর্ণ আস্থা ও সমর্থন ব্যক্ত করে নির্বাচনী মাঠে নামছেন বলে জানালেন বিএনপির এই তরুণ নেতা।

সমর্থকদের খানিকটা ক্ষোভ থাকা স্বাভাবিক উল্লেখ করে ডা. শাহাদাত বলেন, ‘ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে যেখানে তাদের নগর সম্পাদককে সমর্থন দিয়েছে, সেখানে বিএনপির দলীয় সমর্থনও নগর সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমার পক্ষে আসবে-এমনটাই ধরে নিয়েছিলের এখানকার অধিকাংশ নেতা-কর্মী। তবে আমার দল যে সিদ্ধান্তটি নিয়েছে তা অবশ্যই দল এবং দেশের মঙ্গলের জন্যই নিয়েছে। এতে আমার আর কোন ক্ষোভ থাকার কথা নয়। যেহেতু আমি দলের পরিচয়েই পরিচিত, সেখানে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে যাবার কোন ধরনের সম্ভাবনা ও আশঙ্কা নেই।’

মনজুর আলমের প্রতি তার আস্থা অতীতেও ছিল এবং এখনও রয়েছে-এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে ক্ষমতাসীন দল অনেকগুলো হয়রানি মূলক মামলা দিয়ে কোণঠাসা করে রেখেছে। এরমধ্যে অনেক মামলায় উচ্চ আদালত থেকে জামিনে মুক্ত রয়েছি। আশা করি আজ-কালের মধ্যে উচ্চ আদালতে বাকি মামলাগুলোরও একটা ইতিবাচক সুরাহা হবে বলে আমি বিশ্বাস করি। তাই আগামী ৭ তারিখের পরে সদলবলে ‘মনজু ভাইয়ে’র পক্ষে মাঠে নামার ইচ্ছা রয়েছে। ইনশাআল্লাহ আমাদের প্রার্থী এবারও বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবেন।’

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির এই তরুণ নেতার বিরুদ্ধে মোট ১৬টি রাজনৈতিক মামলা রয়েছে। এরমধ্যে ১০টিতে তিনি জামিনে মুক্ত থাকলেও গত ৫ জানুয়ারির পর থেকে বিষ্ফোরণ, গাড়িতে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুরসহ বিভিন্ন অভিযোগে দায়ের হওয়া ৬টির মধ্যে একটিতে জামিনে থাকলেও অপর ৫টি মামলায় তিনি জামিন লাভ করেননি।


আরোও সংবাদ