আমাদের নিয়ে হাসবেন না: এরশাদ

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৩ জুলাই , ২০১৪ সময় ০৫:৩২ অপরাহ্ণ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ বিরোধী দল হিসেবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। পাশাপাশি মন্ত্রিসভায় জাতীয় পার্টিকে নিয়ে হাসাহাসি না করারও অনুরোধ জানান তিনি।
এরশাদ
আজ বৃহস্পতিবার সংসদের সমাপনী বক্তব্যে এরশাদ প্রশ্ন তোলেন, ‘অতীতে বিরোধী দল হিসেবে আপনারা কি সঠিক দায়িত্ব পালন করেছেন?’ এর আগে এরশাদ বলেন, ‘মন্ত্রিসভায় আমাদের নিয়ে হাসাহাসি হয়। আমাদের নিয়ে হাসবেন না। এতে গণতন্ত্রের প্রতি অবিচার হবে। অতীতের খারাপ দৃষ্টান্ত গ্রহণ করবেন না।’

এরশাদ আরও বলেন, ‘১৯৯১-এর নির্বাচনের আগে আমাদের জেলে পাঠানো হয়েছিল। ঠিকমতো প্রচার-প্রচারণা চালাতে পারিনি। তবুও আমরা ৩৫টি আসন পেয়েছিলাম। ১৭টি আসনে ৫০০ ভোটের ব্যবধানে হেরেছিলাম। বিষবৃক্ষ আপনারাই সৃষ্টি করেছিলেন। এটা আমার দোষ নয়, আমাদের দোষ। আর পাঁচটি আসন বেশি পেলে বিএনপি-জামায়াতের সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করতে পারত না। আমরা-আপনারা মিলে সরকার গঠন করতাম। এখন গণতন্ত্রের স্বার্থে অতীতকে কবর দিতে চাই।’

নির্বাচন কমিশনসহ সাংবিধানিক সংস্থাগুলোকে স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ দেওয়ারও আহ্বান জানান এরশাদ। তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের এক্সরে করেও নাকি কোনো মেরুদণ্ড খুঁজে পাওয়া যায়নি। এমন নির্বাচন কমিশন আমরা চাই না। সাংবিধানিক সংস্থাগুলোকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দিন।’ তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র সংসদ নির্বাচন না হওয়ায় দেশ নেতৃত্বশূন্য হয়ে যাচ্ছে।

এরশাদ বলেন, ‘বাজেট বাস্তবায়নে দরকার সহায়ক পরিবেশ। ভোটের আগে বিএনপি-জামায়াত যে নৈরাজ্য, ধ্বংস চালিয়েছিল, তা অব্যাহত থাকলে বাজেট বাস্তবায়ন সম্ভব হবে না। ভোটের আগের ওই অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে। কিন্তু পুরোপুরি হয়নি। নারায়ণগঞ্জ, লক্ষ্মীপুরে ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু কোনো প্রতিকার নেই। জেল, ফাঁসি হলে এসব বন্ধ হয়ে যাবে।’

এরশাদ প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর কন্যা হিসেবে আপনি যা খুশি করেন, আমরা সমর্থন জানাব। মানুষ আপনার কাছে শান্তি চায়। স্বস্তি চায়, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে শান্তি চায়। তা নিশ্চিত করুন। আপনিও বঙ্গবন্ধুর মতো অমর হয়ে থাকবেন।’
এ সময় এরশাদ নিজের লেখা কবিতা পড়ে শোনান, ‘আমাদের যাত্রা হলো শুরু … গড়তে চাই প্রাণের বাংলাদেশ।’ এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহাস্যে হাততালি দেন।
আজ বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ সংসদে উপস্থিত ছিলেন না।