আমরা কী বাংলা ভাষা ভুলে যাচ্ছি

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর , ২০১৫ সময় ১১:১৬ অপরাহ্ণ

আমরা কী বাংলা ভাষা ভুলে যাচ্ছি।‘শহীদ স্মরণে আপন মরণে, রক্তঋণ শোধ কর, শোধ কর’ এই শ্লোগান নিয়েই আমরা লড়াই করে আসছি। কিন্তু আমাদের যে সংস্কৃতি ধারণ করার কথা তা আজও হয়নি। আধুনিকতার নামে নানা ধরনের শব্দ আমাদের ভাষায় ঢুকিয়ে দিচ্ছে। কিছুদিন আগে লোক সংগীতের নামে ফোক ফেস্ট হলো। কিন্তু এটা ইংরেজীতে কেন? তাছাড়া বাংলা একাডেমিতে কয়েক বছর আগে হয়েছিলো হে ফেস্ট, এবার হলো লিট ফেস্ট। আমরা কী বাংলা ভাষা ভুলে যাচ্ছি। আমরা বাংলাকেই পদদলিত করছি’- বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক সস্মেলনে এমন বক্তব্যই তুলে ধরলেন সংগঠনের সভাপতি, বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব কামাল লোহানী।

‘শহীদ স্মরণে আপন মরণে, রক্তঋণ শোধ কর, শোধ কর’ স্লোগান নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শুরু হয়েছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক সস্মেলন। তিন দিনব্যাপী এই সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা করেন বৃহত্তর চট্টগ্রামের লোকশিল্পী আমান উল্লাহ গায়েন। এছাড়া আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে ছিলেন অধ্যাপক শান্তনু কায়সার, মৌলবাদী হামলায় নিহত রাজীব হায়দারের বাবা ডা. নাজিম উদ্দিন।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার পাশাপাশি জাতীয় ও উদীচীর পতাকা উত্তোলন করা হয়। এর পরপরই আমান উল্লাহ গায়েনের গায়ে উত্তরীয় পরিয়ে দেন উদীচীর কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি কামাল লোহানী।

উদীচীর কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি কামাল লোহানীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক প্রবীর সরদার। তিনি বলেন, ‘২০১৩ সালে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে গড়ে উঠা আন্দোলনের অংশ নেয়ার কারণে ২০১৩ সালে উদীচীর জাতীয় সাংস্কৃতিক সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছিল। সেই আন্দোলন এখনও চলমান। তাই যতরকম অপতৎপরতা আসুক না কেন, উদীচী তার সাংস্কৃতিক আন্দোলনের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িকতার বিষ দাঁত ভেঙ্গে দিবে।’

এদিকে উদীচীর জাতীয় সাংস্কৃতিক সম্মেলনের আহ্বায়ক শিল্পী শঙ্কর সাওজাল বলেন, ‘এবার পয়তাল্লিশ বছরে পা রাখলো বাংলাদেশ। এখন উন্নয়নের চেয়ে বেশি প্রয়োজন আপন সংস্কৃতির জাতি নির্মাণ, দেশ নির্মাণ।’

আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে অধ্যাপক শান্তনু কায়সার বলেন, ‘প্রজন্ম তৈরির প্রয়াস হচ্ছে, লোক সংস্কৃতির চর্চা। একমাত্র দেশজ শব্দই পারে আমাদের মূল জায়গায় নিয়ে যেতে। উন্নয়ন সাংস্কৃতিক ভাবে না হলে, তা ব্যর্থ হবে।’

অন্যদিকে মৌলবাদী গোষ্ঠীর হামলায় নিহত ব্লগার রাজীব হায়দারের বাবা ডা. নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘বাংলা ভাষাই আমাদের সংস্কৃতির ধারক বাহক। উদীচী সত্যিকারের বাঙ্গালী সংস্কৃতিকে ধারণ করে।’

সংক্ষিপ্ত আলোচনার শেষে লোকশিল্পী আমান উল্লাহ গায়েনের ঘোষনার মধ্য দিয়ে তিন দিনব্যাপী এই সম্মেলনের যাত্রা শুরু হয়। এসময় উদীচীর শিল্পীরা তাদের নিজস্ব পরিবেশনায় সবাইকে মুগ্ধ করেন। এরপর একটি র‌্যালি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা প্রদক্ষিণ করে।