আনোয়ারায় শেষ মূহুর্তে প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২ জুন , ২০১৬ সময় ১১:১৩ অপরাহ্ণ

ইউপি নির্বাচন
আনোয়ারা প্রতিনিধি:
আগামী ৪জুন অনুষ্ঠেয় আনোয়ারায় অনুষ্ঠেয় ইউপি নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হচ্ছে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে। শেষ মুহুর্তে বেশিরভাগ ইউনিয়নে জমজমাট প্রচার চললেও হাইলধর ও রায়পুর ইউনিয়নের প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী মাঠে না থাকায় একতরফা চষে বেড়াচ্ছেন আওয়ামীলীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হাইলধরের নাজিম উদ্দিন ও রায়পুরের জানে আলম।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে জানা যায়, উপজেলা হাইলধর ইউনিয়নের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত একক প্রার্থী শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন ও আনোয়ারা উপজেলা বি.এন.পি’র সভাপতি বর্তমান চেয়ারম্যান শাহজাহান চৌধুরী দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী যুদ্ধে অবতীর্ন হয়। কিন্তু বিএনপি প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান শাহজাহান চৌধুরী প্রতীক বরাদ্দের দিন থেকে এক দিনের জন্যও এলাকার ভোটারদের কাছে যাইনি বলে স্থানীয় ভোটার ও বিএনপি দলীয় নেতা কর্মীরা অভিযোগ করেন। এই অবস্থায় তিনি আধো নির্বাচনী মাঠে আসবেন কিনা সেই ব্যাপারে কেউ নিশ্চিত করে জানাতে পারেনি। তার নির্বাচনী কৌশল নিয়েও নানাগুঞ্জন শুরু হয়েছে।
তবে বিএনপি প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনী মাঠের পরিবেশ স্বাভাবিক না থাকায় তিনি এলাকায় যেতে পারছেন না। এদিকে এ সুযোগে ফাকা মাঠ পেয়েও একমাত্র প্রার্থী মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন পুরো হাইলধর ইউনিয়নের প্রতিটি বাড়ি বাড়ি ও ঘরে ঘরে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিরামহীন ভাবে ভোটের প্রচারনা চালাচ্ছেন। বুধবার নাজিম উদ্দিন হাইলধর, মালঘর ইছাখালী সহ বিভিন্ন গ্রামে গণসংযোগ, উঠান বৈঠক ও পথসভা করেন। এসময় তার সাথে ছিলেন উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি আসহাব উদ্দিন, আওয়ামীলীগ নেতা আবদুর রহিম, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশীদ, সাবেক আহবায়ক আলী আকবর, মোহাম্মদ নাছির, মাহবুবুর রহমান, শফিউল ইসলাম সহ বিভিন্ন নেতা কর্মীরা। পরৈকোড়া ইউনিয়ন আওমীলীগ মনোনিত প্রার্থী মামুনুর রশীদ চৌধুরী আশরাফ প্রচার প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছে বলে জানা গেছে। বারখাইন ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ মনোনী প্রার্থী হাসনাইন জলিল চৌধুরী শাকিল, নাগরিক কমিটির প্রার্থী এস এম আলমগীর চৌধুরী ও সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল গফফার ভোটের মাঠে শষে বেড়াচ্ছেন।
বররুমচড়া ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির চৌধুরী আনছার ব্যাপক প্রচার প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন। তবে তিনি অভিযোগ করেন, প্রচারণার সময় বিভিন্ন ওয়ার্ডে তার নেতা কর্মীদের প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের সমর্থকেরা বাধা ও ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। পাশাপাশি তিনি ভোট ছিনতাই ও কেন্দ্র দখলের আশংকা করছেন। অপরদিকে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী শাহাদাত হোসেন চৌধুরী ও ব্যাপক প্রচার প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছে এবং তিনিও ভোটারদের ধারে ধারে গিয়ে বিরামহীনভাবে নিজের পক্ষে ভোটের প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।
বটতলী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবদুল মন্নান চৌধুরী নৌকা প্রতীক প্রচার-প্রচারণায় ব্যাপক ভাবে এগিয়ে রয়েছে বলে জানা গেছে। বৈরাগ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ সোলায়মানও বিরামহীন ভাবে ভোটের মাঠে প্রচারণায় ব্যস্ত রয়েছে। চাতরী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ইয়াছিন হিরু, স্বতন্ত্র প্রার্থী শামসুদ্দিন আহমদ চৌধুরীর সাথে পাল্লা দিয়ে বিএনপি প্রার্থী জাগির আহমদ ব্যাপক প্রচার-প্রচারণায় নির্বাচনি মাঠ ঘুরে বেড়াচ্ছেন।
বারশত ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি’র প্রার্থী মোহাম্মদ হাছান চৌধুরী, আওয়ামীলীগ প্রার্থী এম এ কাইয়ুম শাহ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল লতিফ এর বিরামহীন প্রচার-প্রচারণা চলছে। তবে বিএনপি প্রার্থী হাছান চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় তার কর্মী সমর্থকেরা বিভিন্ন ভাবে বাধার সম্মুখীন হচ্ছে। তিনি প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী কর্তৃক ভোটের দিন কেন্দ্র দখল ও ভোট ছিনতাইয়ের আশংকা করছেন। রায়পুর ইউনিয়নের একক প্রার্থী জানে আলম প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীরা মাঠে না থাকায় ফাকা মাঠে প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত রয়েছে। এ ইউনিয়নে নির্বাচনী দৌড়ে তিনি বেশ এগিয়ে রয়েছে বলে ভোটাররা জানিয়েছেন।
জুঁইদন্ডী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ প্রার্থী মাহফুজুর রহমান প্রচার-প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছে। আর আনোয়ারা সদর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ প্রার্থী অসীম দেব স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সৈয়দ, দিদারুল আলম চৌধুরী টিপু বিরামহীন ভাবে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে।