আনুষ্ঠানিকভাবে ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিল সুইডেন

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৩০ অক্টোবর , ২০১৪ সময় ১১:৩৮ অপরাহ্ণ

বেশ কিছুদিন আগেই ঘোষণা দিয়েছিল সুইডেন। এবার আনুষ্ঠানিকভাবে ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিল ইউরোপের দেশটি।

বৃহস্পতিবারের এই ঘোষণা শোনার পর ফিলিস্তিনের মানুষ উল্লাসে ফেটে পড়েছে। অপরদিকে এর প্রতিবাদে ইসরায়েল তেলআবিবে সুইডিশ রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে। তারা অসন্তোষের কথা স্পষ্ট করে জানিয়েছে।

সুইডেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী মারগোট ওয়ালস্ট্রোম এক ‍বিবৃতিতে বলেন, রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার এই পদক্ষেপ ফিলিস্তিনের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারকে নিশ্চিত করবে।

তিনি বলেন, ‘আমরা আশা করি, এই উদ্যোগ অন্যদেরও পথ দেখাবে।’

ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস এই সিদ্ধান্তকে ‘সাহসী ও ঐতিহাসিক’ বলে অভিহিত করেছেন।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্যভুক্ত রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে পশ্চিম ইউরোপের দেশ সুইডেনই প্রথম ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিল।
তবে পূর্ব ইউরোপ এবং ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের নয়টি ইইউ সদস্যভুক্ত দেশ- বুলগেরিয়া, সাইপ্রাস, চেক প্রজাতন্ত্র, হাঙ্গেরি, মালটা, পোলান্ড এবং রোমানিয়া ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

আর ইইউ এর বাইরে ইউরোপীয় দেশগুলোর মধ্যে আইসল্যান্ডই একমাত্র পশ্চিম ইউরোপীয় দেশ যারা ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

এদিকে এ সিদ্ধান্ত ঘোষণার পরই সুইডেনকে সতর্ক করে দিয়েছে ইসরায়েলের প্রধান পৃষ্ঠপোষক যুক্তরাষ্ট্র। তারা এই সিদ্ধান্তকে ‘অপরিপক্ক’ বলে বর্ণনা করেছে। তারা বলেছে, ফিলিস্তিন ‘রাষ্ট্র’ হিসেবে স্বীকৃতি পেতে পারে শুধু ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমেই।

তবে সুইডেন বলছে, তারা কোনো রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দেয়া সম্বলিত আন্তর্জাতিক আইনের সব শর্ত মেনেই এই ঘোষণা দিয়েছে।

উল্লেখ্য, শুধু ধর্মীয় পুস্তকে উল্লেখিত ‘ঈশ্বরের প্রতিশ্রুত ভূমি’ এর দোহাই দিয়ে ফিলিস্তিনের ভূখণ্ড জবরদখল করে ইসরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেছে কট্টর ইহুদি জাতীয়তাবাদীরা। অধীকৃত অঞ্চল বাদ দিয়ে ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃত দেয়া শুধু সমঝোতার মাধ্যমেই সম্ভব, কোনো কূটনৈতিক উদ্যোগ সফল হবে না বলে জেঁকে বসেছে ইসরায়েল। আর তাকে সব ধরনের সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।