আধুনিক বিজ্ঞানের চমক, ব্রাজিলের ঐতিহ্য-সংস্কৃতির প্রতিফলন

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১০ জুন , ২০১৪ সময় ০৯:৩৩ অপরাহ্ণ

আর মাত্র দুদিন পরই ফুরোবে অপেক্ষার প্রহর। পর্দা উঠবে ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের’। খেলার মাঠে অনেক চমকই নিশ্চয়ই দেখাবেন মেসি-নেইমার-রোনালদোরা। মাঠের লড়াই শুরুর আগে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটাও হয়তো কম উপভোগ্য হবে না। আধুনিক বিজ্ঞানের তাকলাগানো উদ্ভাবন, চিরায়ত প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, মনোমুগ্ধকর নৃত্যসংগীত আর অবশ্যই ফুটবল। এই চারের সমন্বয়ে জমকালো এক উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দিয়েই শুরু হবে ব্রাজিল বিশ্বকাপ।

বিশ্বকাপের অফিশিয়াল গান ‘ওলে ওলা’ বা ‘উই আর ওয়ান’ যেন বলছে একতার কথা, যুথবদ্ধতার কথা। কিন্তু আফসোসের বিষয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যাঁদের এই গানটি গাওয়ার কথা, তাঁদেরই একসঙ্গে পাওয়া যাচ্ছে না। অপ্রত্যাশিতভাবে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন পপ তারকা জেনিফার লোপেজ।

মার্কিন এই অভিনেত্রী-সংগীতশিল্পীর অনুপস্থিতি দর্শকদের হতাশ করবে সন্দেহ নেই। কিন্তু অন্য শিল্পী-কলাকুশলীরা নিশ্চিতভাবেই উপভোগ্য একটা অনুষ্ঠানই উপহার দেবেন দর্শকদের। অনেকেরই হয়তো নজর থাকবে আমেরিকান র্যাপার পিটবুল, ব্রাজিলিয়ান শিল্পী ক্লদিয়া লেইতে ও অন্যান্য তারকাশিল্পীদের দিকে। কিন্তু উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সত্যিকারের তারকারা হলেন শত শত স্বেচ্ছাসেবী ও অন্যান্য কলাকুশলী যাঁরা এই অনুষ্ঠানটি সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য মাসের পর মাস ধরে অনুশীলন করে যাচ্ছেন। ফিফার একটি প্রতিবেদন থেকে দেখা গেছে, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এক মিনিটের পারফরম্যান্সের জন্য তাঁরা ২০ ঘণ্টা করে অনুশীলন করেছেন।

সাও পাওলোর করিন্থিয়ান স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শুরুতেই থাকবে আধুনিক বিজ্ঞানের চমক। অত্যাধুনিক রোবোটিক এক্সোস্কেলেটন বা ধাতব বহিঃপোশাক পরে বিশ্বকাপের বোধন হবে একজন পক্ষাঘাতগ্রস্ত মানুষের হাতেই। এরপরই নৃত্য আর সংগীতের মাধ্যমে ব্রাজিলের ঐতিহ্য-সংস্কৃতির প্রতিফলন ঘটাবেন শিল্পীরা। সবশেষে বিশ্বকাপের অফিসিয়াল গান ‘ওলে ওলা’ পরিবেশন করবেন পিটবুল, ক্লদিয়া লেইতে ও ব্রাজিলের জনপ্রিয় ব্যান্ড ওলোডাম।

মাঠের লড়াইয়ে বিশ্বসেরা ফুটবলাররা কত রোমাঞ্চ-উত্তেজনা ছড়াতে পারবেন, সেটা সময়ই বলে দেবে। একে একে হয়তো অনেক অবিস্মরণীয় মুহূর্তই উপহার দেবে এবারের বিশ্বকাপ। তার আগে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটাও স্টেডিয়ামে উপস্থিত ৬৫ হাজার দর্শক ও টিভির পর্দায় চোখ রাখা কোটি কোটি মানুষকে হতাশ করবে না বলে বিশ্বাস আয়োজকদের।