আদালতের নির্দেশ অমান্য করে বহির্নোঙ্গরের জাহাজের ওয়াচম্যনদের নামিয়ে দেয়া হচ্ছে

প্রকাশ:| বুধবার, ১৮ ডিসেম্বর , ২০১৩ সময় ১০:২৬ অপরাহ্ণ

pcআদালতের নির্দেশ অমান্য করে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরের জাহাজে কর্মরত ওয়াচম্যনদের নামিয়ে দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
বুধবার বিকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন চট্টগ্রাম বন্দর মেরিন কন্ট্রাক্টর পাহারাদার কল্যাণ সমিতি।

সংবাদ সম্মেলনে সমিতির সভাপতি মনোয়ার আলী খান বলেন, ১৩ ডিসেম্বর বাংলার সৌরভ ও বাংলার জ্যোতি এবং ১৪ ডিসেম্বর তেরেসা ওরিয়ন জাহাজ থেকে ওয়াচম্যানদের নামিয়ে দেয়া হয়েছে।

“এ ঘটনায় বন্দরের পরিচালকের (নিরাপত্তা) বিরুদ্ধে পতেঙ্গা থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। পুলিশ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র বিবেচনা করে বন্দরকে জানালে তারা পিছু হটতে বাধ্য হয়।”

মনোয়ার আলী বলেন, বন্দরে ওয়াচম্যান নিয়োগে অবৈধ একটি বুকিং সেলও করা হয়েছে। শিপিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন ও কন্ট্রাকটর অ্যাসোসিয়েশনেক এই সেলের মাধ্যমে ওয়াচম্যান নিয়োগ দিতে চাপ দেয়া হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ১/১১ সরকারের সময়ে গঠিত কমিটি ওয়াচম্যান নিয়োগ ও পরিচালনা একটি নীতিমালা করে। কিন্তু বন্দরের কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও শ্রমিক নামধারী দালাল নীতিমালা বাস্তবায়নে বাধা দেয়। বাধ্য হয়ে আমরা আদালতে যাই।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় মামলার পর ২০০৯ সালের ২৪ নভেম্বর আদালত সমিতির পক্ষে রায় দেয়। রায়ের পর চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ আপিল করে। আপিল নিষ্পত্তির আগেই ২০১০ সালের ১৫ জুন বন্দর কর্তৃপক্ষ ওয়াচম্যান নিয়োগ শুরু করে।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন বলেন, প্রতি জনের কাছ থেকে কমপক্ষে ৫০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ আড়াই লাখ টাকা পর্যন্ত ঘুষ নিয়ে মোট ছয়শ জন ওয়াচম্যান নিয়োগ দেয়া হয়।

আপিলের শুনানি শেষে ২০১২ সালের ১৬ ফেব্র“য়ারি সুপ্রিম কোর্টের পুর্নাঙ্গ বেঞ্চ হাইকোর্টের রায় বহাল রাখে। এরপর বন্দর কর্তৃপক্ষ আবার রিভিউ পিটিশন দাখিল করে।

এরপর ২০১২ সালের ১৬ অক্টোবর বন্দর চেয়ারম্যানসহ ছয় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সমিতির পক্ষ থেকে আদালত অবমাননার মামলা করা হয়।

মনোয়ার আলী বলেন, আপিল ও আদালত অবমাননার বিষয়টি নিষ্পত্তি হওয়ার আগেই বন্দর কর্তৃপক্ষের এ ধরনের আচরণ আদালত অবমাননার শামিল।

উল্লেখ্য, বন্দরের ১৩টি জেটিতে থাকা জাহাজে বন্দরের নিয়োগকৃত ওয়াচম্যানরা দায়িত্ব পালন করে।

অন্যদিকে বহির্নোঙ্গরে থাকা দেশি-বিদেশি জাহাজে পাহারাদার কল্যাণ সমিতির শ্রমিকরা দায়িত্ব পালন করে।

সমিতির অধীনে ৬৩৫ জন ওয়াচম্যান আছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এক্সট্রা হাউজগ্যাং শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন, কোষ্টার হ্যাজ শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মহিউদ্দিন কবির, ডক শ্রমিক ইউনিয়নের যুগ্ম সম্পাদক জসিম উদ্দিন প্রমুখ।


আরোও সংবাদ