আঞ্চলিক মহাসড়ক খানা খন্দকে ভরা, জনদুর্ভোগ চরমে

প্রকাশ:| বুধবার, ১৬ সেপ্টেম্বর , ২০১৫ সময় ০৮:৫৫ অপরাহ্ণ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে খানাখন্দ১
গিয়াস উদ্দিন, পেকুয়া
কক্সবাজারের পেকুয়া আঞ্চলিক মহাসড়ক খানা-খন্দকে ভরে গিয়ে জনসাধারনের দারুন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, পেকুয়া বাগগুজারা ব্রীজ থেকে টইটং সীমান্ত ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ৬ কিলোমিটার সড়কের অবস্থা খুবই নাজুক হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে পেকুয়ায় পর পর চারবার বন্যায় আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে পেকুয়ায় মহাসড়ক ও উপসড়ক গুলি লন্ডভন্ড হয়ে পড়েছে। এ দিকে মেহেরনামা উচ্চ বিদ্যালয়ের পশ্চিম দিকে আঞ্চলিক মহাসড়কের অবস্থা খুবই নাজুক। তাছাড়া পেকুয়া হরিণাফাড়ি সংলগ্ন আঞ্চলিক মহাসড়কের অবস্থা আরো করুন হয়ে পড়েছে। এলাকার অসাধু লোকজন পানি নিষ্কাশনের নামে রাস্তা কেটে যানচলাচলে অযোগ্য করে ফেলেছে। তাছাড়া ওই ৬ কিলোমিটার জায়গায় অতিবর্ষণে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে যানবাহন চলাচলে ও লোকজনের চলাচলে দারুন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এলাকার জসিম নামের একজন সিএনজি ড্রাইভার জানান, বন্যা পরবর্তী রাস্তার অবস্থা খুবই খারাপ। রাস্তার মধ্যখানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। অথচ রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন বাস, সিএনজি, মাহিন্দ্রা, মোটরসাইকেল, রিক্সা সহ নানা ধরনের যানবাহন চলাচল করতেছে। এমনকি ওই এবিসি মহাসড়ক দিয়ে সরাসরি সিএনজি দিয়ে চট্রগ্রাম শহরে হাজার হাজার লোকজন যাতায়াত করছে। রাস্তার এ অবস্থায় যে সব যানবাহন চলাচল করছে সে সব যানবাহন গুলির যন্ত্রাংশ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপাারে সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী এম, শহিদুল ইসলাম জানান, শীঘ্রই রাস্তার উন্নয়ন ও মেরামত কাজ শুরু হবে।