আঞ্চলিক গানে মুগ্ধ শ্রোতারা, সম্মামনা পেলেন আঞ্চলিক গানের স্রষ্টা

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর , ২০১৫ সময় ১০:৪৬ অপরাহ্ণ

মহিউদ্দিনকে সম্মামনা প্রদান শুক্রবার সন্ধ্যায় নজরুল স্কয়ার (ডিসি হিল) মুক্তমঞ্চে অনুষ্ঠিত হলো চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গান, কবিগান, প্রেম বিরহের গান, সাম্পানের গান নিয়ে অনুষ্ঠিত হলো বর্ণাঢ্য আয়োজন।

সুপ্রভাত বাংলাদেশ’র ‘এগিয়ে চলো চট্টগ্রাম’ শীর্ষক ধারাবাহিক উদ্যোগের অংশ হিসেবে লোকারণ্য ডিসি হিল চত্বর যেমন মুখর ছিল কবির লড়াইয়ে, আবার সাম্পানওয়ালার গানের সুরে পাগলপারা হয়ে উঠেছিলেন হাজারো দর্শক। সুপ্রভাতের থিম ‘ন-পড়িলে সুপ্রভাত হজম নোঅয় পেডর ভাত’ এর সঙ্গে নাচ ও অভিনয়ে অভিভূত হন উপস্থিত সাধারণ শ্রোতা। বাঁশ ও চাটাইয়ের মঞ্চসজ্জাও যেন মনে করিয়ে দিচ্ছিল চিরায়ত গ্রাম বাংলাকে। শুরুতে কবিগান পরিবেশন করেন কবিয়াল আবু ইউসুফ ও তার দল। কবিগানের হাস্য রসে লুটোপুটি খায় দর্শক। এরপর সুপ্রভাতের থিম সঙ্গীতের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করে ওডিসি অ্যান্ড টেগোর ডান্স মুভমেন্ট সেন্টারের শিল্পীরা। নৃত্য পরিচালনায় ছিলেন প্রমা অবন্তী। এসময় মঞ্চের পাশে থ্রিডি স্ক্রিনে চলছিল সুপ্রভাত বাংলাদেশের থিম সঙ্গীতের মিউজিক ভিডিও।

নাচের পর শুরু হয় একক গানের অনুষ্ঠান। চট্টগ্রামের গান নিয়ে আসেন আঞ্চলিক গানের বিখ্যাত শিল্পীরা। ‘এক দুই তিন চার পাঁচ ছয় সাত, তোয়ার হাতের উদ্দি রাইখখি হাত’ চট্টগ্রামের ভাষায় রোমান্টিক গান নিয়ে প্রথমেই মঞ্চ মাতান আলাউদ্দিন তাহের। একক গান পরিবেশন করেন চট্টগ্রামের গানের বিখ্যাত শিল্পী কল্যাণী ঘোষ। গানের শুরুতে তিনি স্মরণ করেন চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গানের প্রখ্যাত জুটি প্রয়াত শেফালী ঘোষ ও শ্যামসুন্দর বৈষ্ণবকে। তিনি শুরু করেন ‘ও পরানের তালতো ভাই, চিঠি দিলাম পত্র দিলাম তোঁয়ার দেখা নাই’ গানে। গানের প্রথম কলির সুরেই দর্শকের করতালি ও উচ্ছ্বাস জানান দিচ্ছিল আজও চট্টগ্রামবাসীর প্রাণের সুর আঞ্চলিক গান। কল্যানী ঘোষের সঙ্গীত পরিবেশনের পর অনুষ্ঠিত হয় সম্মাননা অনুষ্ঠান। জীবনমুখী আঞ্চলিক গানের স্রষ্টা সৈয়দ মহিউদ্দিনকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

সম্মাননা প্রদান করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। মঞ্চে ছিলেন সুপ্রভাত বাংলাদেশ’র উপদেষ্টা সম্পাদক আবুল মোমেন, সম্পাদক রুশো মাহমুদ ও সহযোগী সম্পাদক কামরুল হাসান বাদল। সম্মাননা অনুষ্ঠানের পর চলতে থাকে চট্টগ্রামের গানের জমজমাট সন্ধ্যা। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গানে দর্শক মাতান জনপ্রিয় শিল্পী শিমুল শীল, গীতা আচার্য ও পান্না চেমন। সঞ্চালনায় ছিলেন আবৃত্তিশিল্পী রাশেদ হাসান, নাট্যাভিনেত্রী কঙ্কন দাশ ও মঞ্জুর মুন্না।

‘এগিয়ে চলো চট্টগ্রাম’ ধারাবাহিক অনুষ্ঠানমালা আয়োজনে সহযোগিতায় রয়েছে রেডিসন ব্লু চিটাগং বে ভিউ, সাইফ পাওয়ারটেক, হুন্ডাই, স্যাংইয়ং, নিশান, একেএস স্টিল, এবি ব্যাংক, বিএসআরএম, একে খান অ্যান্ড কোম্পানি লিমিটেড, কেডিএস গ্রুপ, পিএইচপি ফ্যামিলি, এস আলম গ্রুপ, হাবিব গ্রুপ, পেডরোলো, ফ্রেশ, কনফিডেন্স সিমেন্ট, প্যাসিফিক জিনস লিমিটেড, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংক, সিটিসেল, এশিয়ান অ্যাপেরালস, টিকে গ্রুপ ও প্রাইম ব্যাংক।


আরোও সংবাদ