আজ্ঞাত দুই নারী-পুরুষের লাশ

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৫ জুন , ২০১৫ সময় ১১:৪০ অপরাহ্ণ

নদীর স্রোতে ভেসে এসেছে আজ্ঞাত দুই নারী-পুরুষের লাশ। নাম-পরিচয়হীন এসব লাশের কোনো স্বজনের খোঁজ মিলছেনা। লাশগুলো উদ্ধারে পুলিশেরও নেই কোনো আগ্রহ। ফলে ভেসেই চলেছে এখনো। স্থানীয়দের ধারণা, লাশ দু’টি নদীর স্রোতে ভেসে এসেছে ভারত থেকে।

বুধবার দুপুরে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার পাহাড়ি ভোগাই নদী দিয়ে অজ্ঞাত লাশ দু’টি ভেসে আসে।

স্থানীয়রা জানায়, লাশ দু’টির বয়স আনুমানিক ৩০ থেকে ৩৫ বছর হবে। বুধবার দুপুরে হঠাৎ এক পুরুষের লাশ ভেসে আসছে দেখা যায়। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে আশপাশের লোকজন নদীর পাড়ে গিয়ে ভিড় জমায়।

এর একটু পরেই আরেক নারীর লাশ ভেসে আসতে দেখে উপস্থিত লোকজন। এতে তাদের মাঝে কৌতুহল ‍সৃষ্টি হয় যে, লাশগুলো আসছে কোত্থেকে? তাদের মধ্যে অনেকেই ধারণা করছেন, উজানের ঢলের সঙ্গে যেহেতু লাশদু’টি ভেসে আসেছে সে হিসেবে এগুলো ভারতীয় নাগরিকদেরই লাশ হবে।

পরে পুলিশকে বিষয়টি জানায় স্থানীয়রা। কিন্তু লাশ দু’টি উদ্ধারে পুলিশ কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে জানায় তারা।

এদিকে বুধবার দুপুরে শহরের দমদমা এলাকার একটি জলাশয় থেকে ইছাম উদ্দিন ইছা (৫০) নামে এক বৃদ্ধ রিকশাচালকের লাশ উদ্ধার করা হয়।

অপরদিকে শ্রীবর্দী উপজেলার চকবন্দি গ্রামে নানার বাড়িতে বেড়াতে এসে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়। পরে ডুবুড়িরা তাদের লাশ উদ্ধার করে।

স্থানীয়রা জানায়, শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার চকবিন্দ গ্রামে নানার বাড়িতে বেড়াতে এসে পুকুরের পানিতে ডুবে যায় চিনেরচর গ্রামের আব্বাছ আলী ছেলে মুসলিম (৭) ও চাংপাড়া গ্রামের আক্কাছ আলীর মেয়ে আছিয়া বেগম (৫)। পরে তাদের স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস দলের ডুবুরিরা উদ্ধারে ব্যর্থ হলে খবর দেওয়া হয় ঢাকা ফায়ার সার্ভিসের সদর দপ্তরে।

খবর পেয়ে বুধবার রাত সারে ১০ টায় সদর দপ্তরের ৫ সদস্যের একটি ডুবুড়ি দল শেরপুরে এসে ওই পুকুরে অনুসন্ধান চালিয়ে মৃতদেহ দু’টি উদ্ধার করে।

বুধবার দুপুরে নানা মোতালেব মিয়া গরু গোসল কারাতে বাড়ির পাশে পুকুরে যায়। এ সময় ওই দু’শিশুও তার সঙ্গে পুকুরে যায়। একপর্যায়ে তার অজান্তে শিশুরা পুকুরে নামলে পানিতে ডুবে যায়। এতে তাদের মৃত্যু হয়।


আরোও সংবাদ