‘আওয়ামী লীগ ভাড়া করা দল নয়’

প্রকাশ:| রবিবার, ৯ নভেম্বর , ২০১৪ সময় ১১:০০ অপরাহ্ণ

‘আওয়ামী লীগ ভাড়া করা দল নয়’আওয়ামী লীগ বিএনপি’র মত ভাড়া করা দল নয় বলে মন্তব্য করেছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশারফুল ইসলাম। রোববার জয়পুরহাটে জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে তাই ভোটের মাধমে কাউন্সিল করে নেতা নির্বাচন করে। আওয়ামী লীগ ১৯৪৮ সাল থেকেই আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছে। ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬৬’র ৬ দফা, ৬৯-এর গণ আন্দোলন করেছে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ করেছে। পৃথিবীতে একমাত্র দল যারা বুকের রক্ত দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছে। কাউন্সিল উদ্বোধন করেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্য মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি তার বক্তব্যে বলেন- ৫ই জানুয়ারি নির্বচন না হলে এখানে কাউন্সিল হত না। সাংবাদিক ভাইয়েরা আপনারা এখানে থাকতে পারতেন না দেশে মার্শাল’ল আসত। শেখ হাসিনা-খালেদা জিয়াকে নির্বাচনে আসতে বলেছিল, তিনি আসেননি। খালেদা জিয়া জামায়াতের কথা শুনে হরতাল প্রত্যাহার না করে আলোচনায় আসেননি। শেখ হাসিনা বলেছিলেন আপনি কোন পদ নিবেন আসেন সেটা দেয়া হবে তবু নির্বাচন হোক, কিন্তু তিনি আসেননি। খালেদা জিয়া চেয়েছিলেন দেশে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না এসে অন্য কেউ যেন ক্ষমতায় আসে। এটি ছিল খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্য। খালেদা জিয়া দেশে গণতন্ত্র হত্যার চক্রান্ত করেছিলেন। নির্বাচন হয়েছে, দেশে গণতন্ত্র ফিরে এসেছে। জয়পুরহাট জেলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত কাউন্সিলে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সামছুল আলম দুদুর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব উল আলম হানিফ, এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাবেক মন্ত্রী ডা. দীপু মনি, কর্ণেল ফারুক খান, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি প্রমুখ। কাউন্সিলে জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি এডভোকেট সামছুল আলম দুদু ও সাধারণ সম্পাদক এসএম সোলাইমান আলী পুনরায় যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। দলীয় সূত্রে জানা যায়, সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে তিন জন করে পার্থী ছিলেন কিন্তু কাউন্সিলে ভোটাভুটি হওয়ার আগেই বাকী দু’জন প্রার্থী তাদের পার্থীতা প্রত্যাহার করে নেন। ফলে বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হলেন।


আরোও সংবাদ