আইনি অনুমোদন পেলে এয়ারটেলের সঙ্গে রবি একীভূত হবে

প্রকাশ:| রবিবার, ২৯ নভেম্বর , ২০১৫ সময় ০৯:০১ অপরাহ্ণ

আইনি অনুমোদন পেলে এয়ারটেলের সঙ্গে আগামী তিন মাসের মধ্যে ব্যবসা একীভূত (মার্জার) হওয়ার প্রাথমিক কাজ শেষ করা সম্ভব বলে জানিয়েছে মোবাইল অপারেটর রবি। আর একীভূতকরণের পুরো প্রক্রিয়াটি শেষ করতে এক বছর লেগে যাবে। চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) আর্থিক ফলাফল প্রকাশ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এমন তথ্যই জানিয়েছে রবি।

গুলশানে রবির প্রধান কার্যালয়ে আজ রোববার এ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন রবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সুপুন বীরাসিংহে, চিফ করপোরেট অ্যান্ড পিপল অফিসার মতিউল ইসলাম নওশাদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
সুপুন বীরাসিংহে বলেন, বাংলাদেশে ব্যবসা একীভূতকরণ মূলত আদালতের মাধ্যমে হয়। আদালত ও নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন পাওয়ার পর সব একীভূত হওয়ার সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে এক বছর লেগে যাবে, এটা রাতারাতি শেষ করা সম্ভব নয়।
একীভূত হওয়া নিয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) গ্রাহক জরিপের উদ্যোগ নিয়ে রবির সিইও বলেন, নিয়ন্ত্রক সংস্থার নেওয়া যেকোনো উদ্যোগে সহযোগিতা করতে আমরা প্রস্তুত আছি।
তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক ফলাফল নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে রবি আয় করেছে ১ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা। বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে এ আয় ছিল ১ হাজার ৩০০ টাকা। ২০১৪ সালের তৃতীয় প্রান্তিকে রবির আয় ছিল ১ হাজার ২১০ কোটি টাকা। আলোচ্য প্রান্তিকে অপারেটরটির কর পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ১১০ কোটি টাকা, যা গত প্রান্তিকে ছিল ৯০০ কোটি টাকা। প্রান্তিকের হিসেবে রবির মুনাফা বেড়েছে ২০ দশমিক ৪ শতাংশ।
২০১৫ সালের প্রথম ৯ মাসে রবিতে ৩১ লাখ নতুন গ্রাহক যোগ হয়েছে। এতে করে রবির মোট গ্রাহকের সংখ্যা ২ কোটি ৮৪ লাখে পৌঁছেছে। এটি দেশের মোট মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর ২১ দশমিক ৬ শতাংশ।
চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে সময়ে ইন্টারনেট ডেটা থেকে রবির আয় বেড়েছে ১০০ শতাংশের বেশি। নেটওয়ার্ক উন্নয়নে ২০১৫ সালের তৃতীয় প্রান্তিকে ৪৩০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে রবি। এ সময়ে রবি সরকারকে রাজস্ব হিসেবে জমা দিয়েছে ৩২০ কোটি টাকা। আর বাংলাদেশে ব্যবসা শুরুর পর থেকে রবির মোট ১৬ হাজার ১০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে।