আইএসের হাতে অপহৃত লিটনের পরিবারে চরম উদ্বেগ

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১০ মার্চ , ২০১৫ সময় ০৮:৪৯ অপরাহ্ণ

:: মোফাজ্জল হোসেন টিপু, নোয়াখালী ::

ইসলামী স্টেট আইএস’র জঙ্গী সংগঠন আইএসএসের হাতে অপহৃত লিবিয়ায় ৯ জনের মধ্যে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের যুবক আনোয়ার হোসেন লিটনের কাদিরপুর ইউনিয়নের গয়েজপুর গ্রামের বাড়ীর স্বজনরা চরম উদ্বেগ আর হতাশায় দিন অতিবাহিত করছে। পরিবারের সদস্য ও এলাকাবাসীর দাবি দ্রুত আনোয়ার হোসেন লিটনকে মুক্ত করে দেশে ফিরিয়ে আনতে সরকারের প্রধান মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সহায়তা কামনা করেছেন।

জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলার কাদিপুর ইউনিয়নের গয়েজপুর গ্রামের আমজাদ হাজী বাড়ির মো. ইউনুছের চার ছেলে ও তিন মেয়ের মধ্যে আনোয়ার হোসেন লিটন ছিলো মেঝো। ব্যক্তিগতভাবে আনোয়ার হোসেন লিটন বিবাহিত। তার এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। দীর্ঘ দিন সে লিবিয়ায় চাকুরী করলেও ২০১০ সালে যুদ্ধের কারণে দেশে ফিরে আসে এবং ২০১৩ সালের জানুয়ারী মাসে আার লিবিয়ায় যায়। সেখানে ঘানি এলাকার বাউস লি: নামে একটি কোম্পানীতে ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ার পদে কাজ করছে।

সর্বশেষ ৫ মার্চ দিনে ও রাতে গ্রামের বাড়িতে মা ভাই ও রাতে ঢাকায় অবস্থানরত স্ত্রীর সাথে কথা হয়। পরদিন ৬ মার্চ শুক্রবার দুপুরে তার স্ত্রীর মোবাইলে একটি ম্যাসেজ আসে “ কল করা সম্ভব নয়”। এর পর থেকে তার মোবাইলে বার বার চেষ্টা করে বন্ধ পায় স্বজনরা। এদিকে বিভিন্ন গনমাধ্যমের মাধ্যমে লিবিয়ায় ৯ জন অপহৃত কথা জানতে পেরে পরিবারের পক্ষ থেকে লিবিয়ায় থাকা আনোয়ার হোসেন লিটনের সহকর্মীদের কাছে ফোন করা হয়। দুুপুরে এনাম নামে লিবিয়ার থেকে এক বাংলাদেশী জানান শুক্রবার ৭ থেকে ৮ জন আর্মি পোষাক পড়া লোক আনোয়ার হোসেন লিটনকে অপরণ করে নিয়ে যায়। ইতোমধ্যে আনোয়ার হোসেনের পরিবারের সদস্যদের লিবিয়ার হাই কমিশনার ও বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রনায় অপহরণ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তারা উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছেন ও বলে জানান । তার পরে তার পরিবার চরম হতাশায় দিন কাটাচ্ছে। কোনো আশাই তাদের চিন্তা দুুর করতে পারছে না। সরকারের কাছে জোর দাবি জানান সন্তানকে উদ্ধারে। আটক আনোয়ার হোসেনের মা আফরোজা বেগম ছেলের অনিশ্চিত ভবিষ্যত নিয়ে কথা বলতে গিয়ে বারবার কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

বাড়িতে থাকা ছোট ভাই আমির হোসেন ও ছোট বোন রাবেয়া আক্তারের চোখে-মুখে হতাশার চিত্র। মা-বাবাকে সান্ত¦না দিলে ও নিজেরা কোনো আশা –ভরশা পাচ্ছেনা । তার পরে সরকারের কাছে দাবি তাদের ভাইকে যেন জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করে তাদের মাঝে ফিরে আনা হোক। সর্বশেষ খবর জানতে ইউপি চেয়ারম্যান আর এলাকার গণমান্য ব্যক্তি ও প্রতিবেশীরাও ছুটেছেন ওই বাড়িতে। বিকালে গণমাধ্যম কর্মীদের ভীড় লেগে যায় বাড়িতে। স্থাণীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নুর নবী সরকারের নিকট দাবি জানান দ্রুত আনোয়ার হোসেন লিটনকে মুক্ত করে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য। #