আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের বাংলা নববর্ষ অনুষ্ঠান

mirza imtiaz প্রকাশ:| সোমবার, ১৫ এপ্রিল , ২০১৯ সময় ০৫:৪৯ অপরাহ্ণ

বৈশাখ মানে গ্রীষ্ম ঋতুর শুরু। উজ্জ্বল রৌদ্রময় দিন। তেমনি আবার কালবৈশাখীর ভয়াল রূপ। জীবন সংগ্রামের দীক্ষা লাভের নানা রূপের সংমিশ্রণ নববর্ষের সূচনালগ্ন। এই সূচনালগ্নে নতুন ভাবনা-চিন্তায় কতটা এগিয়েছি আমরা তারও খতিয়ান করা দরকার। নতুন বছরে পদার্পণের অর্থই হলো নতুনের মুখোমুখি হওয়া। সামনের দিনগুলোকে নবউদ্যমে বিনির্মাণের তাগিদ। আমাদের উদ্যম, আমাদের অধ্যবসায় সব নিয়োজিত হোক জাতীয় উন্নয়নের লক্ষ্যে। উৎসবের আনন্দ নতুন সঙ্কল্পে দীক্ষিত জাতির ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার নতুন শক্তির প্রেরণা হোক। এজন্য সকলের সম্মিলিত উদ্যোগ ও প্রচেষ্টা প্রয়োজন। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্র আয়োজিত পহেলা বৈশাখ ও বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের চেয়ারম্যান ও প্রকৌশল প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. প্রকৌশলী মোহাম্মদ রফিকুল আলম একথা বলেন। তিনি আরো বলেন, বাংলা নববর্ষ সুর-সঙ্গীতের, মেলা-মিলনের, আনন্দ ও উৎসবের, সাহস ও সঙ্কল্পের প্রেরণা জোগায়। দুঃখ গ্লানি, অতীতের ব্যর্থতা পেছনে ফেলে তাই এগিয়ে যাওয়ার শপথ নেয়ার দিনও পহেলা বৈশাখ। দেশ ও জাতির কল্যাণে সবাই এক কাতারে শামিল হয়ে এগিয়ে যাওয়ার অগ্নিশপথ নেয়ার দিন এটি। পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনেও বৈশাখের চেতনায় সবাই উজ্জীবিত হোক। নতুন ভবিষ্যত গড়ার প্রত্যয়ে সবাই হোক উদীপ্ত। সবাইকে নববর্ষের শুভেচ্ছা। স্বাগত ১৪২৬। অকপটে স্বীকার করতে হবে যে, বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে একটা পরমাশ্চর্য বিস্ময়। বিশ্ববাসী অবাক তাকিয়ে রয় এ দেশের দিকে। স্বাধীনতা প্রাপ্তির মাত্র ৪৮ বছরে বাংলাদেশের অবিশ্বাস্য উন্নয়ন এবং সমৃদ্ধি উদাহরণ ও অনুপ্রেরণা হয়ে দাঁড়িয়েছে বিশ্বের অনেক দেশের কাছে। এমনকি সুমহান মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত পাকিস্তানও অকপটে স্বীকার করে থাকে, বাংলাদেশ আমাদের চেয়ে অন্তত ১০ বছর এগিয়ে আছে। অনুকরণীয় হতে পারে বাংলাদেশ তাদের কাছেও। সুতরাং ১৪২৬-এর শুভ বৈশাখের প্রারম্ভে দাঁড়িয়ে আমরা সবাই এ দেশ নিয়ে গর্ব করতেই পারি। আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সম্মানী সম্পাদক ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেমনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মানিকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত দিনব্যাপী আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের দিনব্যাপী বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের ভাইস চেয়ারম্যান প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন, প্রকৌশলী প্রবীর কুমার দে, দিনব্যাপী ১লা বৈশাখ ও বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে অনুষ্ঠানে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রে অনুষ্ঠানসূচির মধ্যে ছিল সকাল ৮টায় প্রকৌশলী সদস্যদের সপরিবারে পারষ্পরিক শুভেচ্ছা বিনিময়, সকাল ৯টায় পিঠা উৎসবের উদ্বোধন, ৯.৩০ মিনিটে প্রকৌশলী পরিবারের চিরন্তন বাঙালি সাজে সজ্জিত হয়ে বিভিন্ন স্টোল থেকে কুপনের মাধ্যমে পিঠা ও বাঙালি চিরন্তন খাবার পরিবেশিত হয়। সকাল ১০টায় শিশুদের আলপনা আঁকা প্রতিযোগিতা, ১০.৩০ মিনিটে মেহেদী সাজের অনুষ্ঠান। দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পী সাকিলা জাহান, পাপিয়া ভট্টাচার্য্য, সামিনা ইসলাম, লাকী দাশ, জয়ন্তী দাশ মিষ্টু, স্নিগ্ধনীল বড়–য়া, আদ্রি দাশ গুপ্তা, আদ্রিতা চৌধুরী, নীলয় পাল, নৃত্য পরিবেশন করেন ওড়িশী টেগোর ড্যান্স এন্ড মুভমেন্ট সেন্টার, নৃত্য পরিচালনায় প্রমা আবন্তী, যাদু পরিবেশন করেন খ্যাতিমান যাদুশিল্পী রাজীব বসাক, কুষ্টিয়ার লালনশিল্পী, বেহুলে ল্যান নৃত্য পরিবেশন করেন অদৃজা সেন। বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে সঙ্গীত পরিবেশন করেন কুষ্টিয়ার লালন শিল্পীবৃন্দ।


আরোও সংবাদ