অস্থির হয়ে উঠেছিল তার মন?

mirza imtiaz প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর , ২০১৮ সময় ০২:৩৩ পূর্বাহ্ণ

কী ভাবছিলেন তিনি, কেনই বা অস্থির হয়ে উঠেছিল তার মন? না হলে স্ট্যাটাসের পর স্ট্যাটাস কীসের বেদনা জাগাতে চাইতেন আইয়ুব বাচ্চু!এই মাস দেড়েক আগে ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিলেন-‘চিন্তার কোনো কারণ নেই। এই পৃথিবী থেকে কেউ জীবিত ফিরে যাবে না।’এমন স্ট্যাটাসে ভক্তকুলের হৃদয়ও কেমন করে ওঠেছিল। কমেন্টসে এক ভক্তের জিজ্ঞাসার উত্তরে বাচ্চু লিখলেন, সময় এলে সবাই ফিরে যাবে।সেখানে সালেহীন খান লিখেছেন শুধু স্মৃতি রয়ে যায়। শিল্পী উত্তর দিলেন, মনে হয় না! তোমার দাদার বাবা কে ছিলেন কিংবা নানুর বাবা কে ছিলেন-তুমি কি মনে করতে পারবে এখনও?এই কথাটি ক’জনে বোঝে এমন মন্তব্য করেছিলেন পাপন মৃধা। উত্তরে বাচ্চু বললেন, বোঝে না! বোঝে।আরেক ভক্ত লিখেছেন, এই পৃথিবী হতে চলে যেতে হবে এটি সবাই জানে কিন্তু কেউ বিশ্বাস করতে চায় না যে পৃথিবী ছাড়তে হবে এবং আর ফিরে আসা যাবে না।সেখানে শিল্পী উত্তর দিলেন, কারণ, এই পথ দিয়ে শুধু যাওয়াই যায়।২৯ সেপ্টেম্বর তিনি স্ট্যাটাস দিলেন, বিচিত্র মানুষের মন, বিচিত্র মানুষের জীবন। আর যাই হোক অন্তত:পক্ষে বন্ধু তো চেনা যায়।মানুষ ভীষণ আবেগ প্রবণ’-এমন স্ট্যাটাস দিলেন ২৬ সেপ্টেম্বর।১২ সেপ্টেম্বর লিখলেন, I’m here for you, Just Don’t be blue।৯ সেপ্টেম্বর দিলেন, ‘কখন যে কার ভাগ্য বদলে যায় সেই কথা তো কারো জানা নাই’-এই স্ট্যাটাস।ফেইসবুক নিয়মিত ব্যবহার করতেন তিনি। ছিল টুইটার ও ব্যক্তিগত ইউটিউব চ্যানেল।সর্বশেষ ১৬ অক্টোবর রংপুরে অনুষ্ঠিত এক কনসার্টের ছবি শেয়ার করেছিলেন বাচ্চু। এছাড়া ফেইসবুকে নিয়মিত বিভিন্ন কনসার্ট ও নিজের ছবি শেয়ার করতেন তিনি।ফেইসবুকে নিয়মিত স্ট্যাটাস দিলেও টুইটারের নিয়মিত ছিলেন না তিনি। টুইটার আইডিতে সর্বশেষ পোস্ট করেছিলেন ২০১৪ সালে ২২ জানুয়ারি।সেখানে আজম খানকে স্মরণ করে তার সর্বশেষ টুইট, সারা রাত জেগে জেগে, কতো কথা আমি ভাবি। শুধু তুমি কেনো বোঝো না। তাই ঘুম আসে না। গুরু আজম খানকে কোটি কোটি সালাম।আইয়ুব বাচ্চুর ব্যক্তিগত ইউটিউব চ্যানেলে এক হাজার ৪৩ জন সাবক্রাইবার রয়েছে। ২৮টি ভিডিও রয়েছে ৩ বছর আগে খোলা এই চ্যানেলটিতে। অসুস্থ বোধ করায় বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে আইয়ুব বাচ্চুকে অচেতন অবস্থায় ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানেই কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৫৬ বছর।


আরোও সংবাদ