অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে ২৪৫

প্রকাশ:| বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৪:৩৪ অপরাহ্ণ

এই ফেব্রুয়ারিতে ক্রিকেটে বাংলাদেশকে সইতে হচ্ছে একটার পর একটা বেদনার যাতনা। গত কয়েকটি ম্যাচে বারবার ‘বড়’দের তরি ডুবছে জয়ের বন্দরে গিয়ে, ‘ছোট’দেরও অনেকটা তা-ই। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের প্রথম দুটি ম্যাচে আফগানিস্তান ও নামিবিয়ার বিপক্ষে দারুণভাবে জেতার পরও আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৭৪ রানে হেরে শেষ আটে যেতে পারল না বাংলাদেশ।আজ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২৩১ করতে পারলেও শেষ আট নিশ্চিত হতো বাংলাদেশের। কিন্তু ৪২ ওভারে ১৭০ রানে অলআউট হওয়ায় কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হলো না যুবাদের। যদিও বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়া ও আফগানিস্তানের পয়েন্ট সমান। তিন দলেরই পয়েন্ট ৪। কিন্তু অন্য দুটি দলের তুলনায় রান রেটে বাংলাদেশ ঢের পিছিয়ে। অস্ট্রেলিয়ার রান রেট ০.৯২৭, আফগানিস্তানের ০.৮৮১, বাংলাদেশের ০.০৯৭।

শেষ ম্যাচে যুবা অধিনায়ক মেহেদি হাসান টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন। প্রথমে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২৪৪ রান। ২৪৫ রানের লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নেমে ১০ রানেই ওপেনার জয়রাজ শেখকে হারালেও আগের দুই ম্যাচে দুর্দান্ত ব্যাটিং করা সাদমান ইসলাম ও লিটন দাস ভালোভাবেই এগিয়ে নিচ্ছিলেন দলকে।

দলীয় ৮০ রানে ৪৩ করা লিটন দাস ফেরেন থমাস অ্যান্ড্রুসের শিকার হয়ে। তবে বাংলাদেশের ইনিংসে সবচেয়ে দুর্ভাগার নাম সাদমান। দুদিন আগে প্রথম আলোকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে এ বাঁ-হাতি বলেছিলেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে দুবার ৪৮ ও ৪৯ রানে আউট হয়েছি। দুর্ভাগ্য ছাড়া আর কি-ই বা বলার আছে!’ দুর্ভাগ্য পিছু ছাড়ল না আজও। সাদমান রানআউটে কাটা পড়লেন ঠিক ৪৯ রানে! ১২৬, ৬৫ ও ৪৯—অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে আফগানিস্তান, নামিবিয়া ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সাদমানের তিনটি ইনিংস। তিন ম্যাচ মিলিয়ে এ বাঁ-হাতির রান ২৪০, গড় ৮১.৬! মিডল অর্ডারদের ব্যর্থতার কারণে আজ শেষ পর্যন্ত ৭৪ রানের পরাজয় মানতে হলো বাংলাদেশকে। সূত্র: আইসিসি।