অভিজিৎকে হত্যার দায় স্বীকার!

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি , ২০১৫ সময় ০৯:২১ অপরাহ্ণ

অভিজিৎকে হত্যার দায় স্বীকার!লেখক-ব্লগার অভিজিৎ রায়ের হত্যার দায় আনসার বাংলা-৭ নামের একটি সংগঠন স্বীকার করেছে বলে দাবি করেছে পুলিশ। পুলিশের রমনা জোনের সহকারী কমিশনার এস এম শিবলী নোমানের ভাষ্য, আনসার বাংলা -৭ নামের একটি সংগঠন এই হামলার দায় স্বীকার করে টুইটারে একটি পোস্ট দিয়েছে। ব্লগার রাজীব, অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদের ওপর যেভাবে হামলা করা হয়েছিল, এবারের ধরনটাও একই ধরনের।

আজ বেলা একটার দিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। ডিবির উপকমিশনার (দক্ষিণ) কৃষ্ণপদ রায় এ বিষয়ে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আনুষ্ঠানিকভাবে তদন্তের দায়িত্ব আমাদের কাছে এখনো (এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত) না এলেও আমরা কাজ শুরু করে দিয়েছি। বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি। এখন পর্যন্ত কেউ আটক হয়নি।’

ঘটনাস্থল পরিদর্শনের সময় গণমাধ্যম কর্মীদের কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ‘সময় ধরে হিসাব করা মুশকিল। প্রতিটি ঘটনা আলাদা। প্রতিটি ঘটনার প্যাটার্ন আলাদা। তদন্তের কার্যক্রম আলাদাভাবে গণ্য। লোকজন অনেক সময় আলাদা হয়। ভিকটিমও আলাদা। আমরা কাজ করছি, সময় ধরে বলা যাবে না। তবে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব—এর পেছনে যারা জড়িত, তাদের খুঁজে বের করতে।’

ঘটনার পর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) অপরাধ শনাক্তকরণ দল ঘটনাস্থলের আলামত সংগ্রহ করে। শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ঘটনাস্থল থেকে রক্তমাখা দুটি চাপাতি ও কাঁধে ঝোলানো একটি ব্যাগ উদ্ধার করা হয়েছে। দুটি চাপাতির হাতল কাগজে মোড়ানো ছিল।

শ্রদ্ধা নিবেদন ও মরদেহ দান

অভিজিৎ রায়ের প্রতি আগামী রোববার শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে। ওই দিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত দুই ঘণ্টা তাঁর মরদেহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে রাখা হবে। আজ দুপুরে প্রথম আলোকে এ কথা জানান অভিজিৎ রায়ের ছোট ভাই অরিজিৎ রায়ের স্ত্রী কেয়া বর্মণ।

কেয়া বর্মণ বলেন, শ্রদ্ধা নিবেদনের পর অভিজিৎ রায়ের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজে গবেষণার জন্য দান করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।