অবৈধ সরকারের ফয়সালা হবে মাঠে

প্রকাশ:| বুধবার, ৬ আগস্ট , ২০১৪ সময় ০৯:৩০ অপরাহ্ণ

আওয়ামী লীগের কারণে বর্হিঃবিশ্বে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খান।
অবৈধ সরকারের ফয়সালা হবে মাঠে
তিনি বলেন, জনগণকে বিভ্রান্ত করে ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রকে কলঙ্কিত করেছে।

বুধবার বিকেলে নগরীর পাঁচলাইশ এলাকায় এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। বায়েজিদ থানার পাঁচলাইশ ৩ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপি এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের রাজপথে সর্বোচ্চ ত্যাগের মানসিকতা নিয়ে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়ে মোরশেদ খান বলেন গণদাবি মেনে নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার পদত্যাগ করে ক্ষমতা হস্তান্তর না করলে বর্তমান অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে ফয়সালা হবে মাঠে।

সরকারের আচরণের উপর আন্দোলনের গতিপথ নির্ধারণ করবে উল্লেখ করে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খান বলেন, গণতান্ত্রিক আন্দোলনের বাধা সৃষ্টি করলে আন্দোলনও ভিন্নপথে মোড় নিবে। এদেশের জনগণ বিএনপির সাথে আছে। জনগণই বিএনপির শক্তি। দেশের সংখ্যাগরিষ্ট জনগণ একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠার পক্ষে।

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্প্রতি মন্ত্রী পরিষদের অনুমোদন দেওয়া গণমাধ্যম নীতিমালার সমালোচনা করে বলেন, ৭৪ সালের বাকশাল প্রতিষ্ঠার নামে চারটি সংবাদপত্র ছাড়া দেশের সকল সংবাদপত্র বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। আর বর্তমান অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী জনগণের কণ্ঠরোধ করতে না পেরে নতুন নীতিমালা প্রণয়নের নামে সংবাদ পত্রের কন্ঠ রোধ করার চেষ্ঠায় লিপ্ত।

পাঁচলাইশ ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সহ-সভাপতি ইসহাক কোম্পানীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যেও মধ্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সৈয়দ ওয়াহিদুল আলম, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, উত্তর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান, বিএনপি নেতা মোরশেদ কাদেরী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এম মোর্শেদ খান বলেছেন, এল কে সিদ্দিকী দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অন্যায়ের কাছে কখনো মাথা নত করেননি। দুর্নীতিবাজদের কাছে ভিড়তে দেননি। এমন মহৎ রাজনীতিক বাংলাদেশের ইতিহাসে বিরল।

তিনি বলেন, জাতীয় সংসদের দায়িত্ব পালনকালে সৎ মানসিকতা, সততা, ন্যায় পরায়ন ও দেশপ্রেমিক হিসেবে কাজ করে গেছেন। দলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থেকেও লালসার বশবর্তী না হয়ে স্বেচ্ছায় রাজনীতি থেকে অবসর নিয়েছেন।

আগামী দিনে যারা নেতৃত্বে আসবেন তারা এই মহান ব্যক্তির আর্দশকে বুকে ধারণ করে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখবে আশা প্রকাশ করেন সাবেক এ মন্ত্রী।

বুধবার বিকেলে সীতাকুণ্ডের রহমতনগরে এল কে সিদ্দিকীর গ্রামের বাড়িতে কুলখানি উপলক্ষে মরহুমের কবর জেয়ারত শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মোর্শেদ খান।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে বিএনপি জাতীয় নিবার্হী কমিটির তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ ওয়াহিদুল আলম, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির আহবায়ক আসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি আবু সুফিয়ান, বিএনপি নেতা মোরশেদ কাদেরী, সীতাকুণ্ড উপজেলা বিএনপির আহবায়ক তফাজ্জল আহমেদ, সাবেক আহবায়ক ইউসুচ চৌধুরী, যুগ্ম আহবায়ক জহুরুল আলম জহুর, পৌর বিএনপির সভাপতি ইউসুপ নিজামী, সাধারণ সম্পাদ শামসুল আলম আজাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আরোও সংবাদ