অবৈধ ভাবে বালি উত্তোলন হুমকির মুখে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

প্রকাশ:| শনিবার, ১৯ মার্চ , ২০১৬ সময় ১১:৩৩ অপরাহ্ণ

বালু উত্তোলন
সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও:
কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাঁও নদী থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে প্রতিনিয়ত বালি উত্তোলনের ফলে হুমকির মুখে পড়েছে ঐতিহ্যবাহী দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। মেশিনের বিকট শব্দে দৈনন্দিন শিক্ষা কার্যক্রম চরম ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। বালি উত্তোলনের ফলে ঈদগাঁও নদীর পাড়ে কোটি টাকা ব্যয়ে স্থাপিত স্পার বাঁধ চরম ঝুঁকির মুখে পড়েছে। অন্যদিকে নদী হয়ে পড়ছে বালি শূন্য।
জানা যায়, ঈদগাঁও নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে অস্বাভাবিক হারে প্রতিনিয়ত বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। বালি উত্তোলনে ব্যবহৃত হচ্ছে বড় বড় ড্রেজার মেশিন। ক্ষমতাসীন দলের কতিপয় লোক এবং অসাধু কিছু ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন যাবৎ নদী থেকে অবৈধ ভাবে বালি উত্তোলন করে আসছে। এসব বালি বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের সময় মাটি ভরাট সহ নানা কাজে ব্যবহৃত হয়। ভবন ও বসত ভিটা নির্মাণকারীরা হাজার হাজার টাকার বিনিময়ে বালি উত্তোলনকারীদের সাথে চুক্তি করে। চুক্তি মতে ড্রেজার মেশিন মালিকরা নদীর বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে বালি উত্তোলন করে ক্লায়েন্টকে সরবরাহ করে থাকে প্রতিনিয়ত বালি উত্তোলন করতে করতে চলতি শুস্ক মৌসুমে ঈদগাঁও নদী এক প্রকার বালি শূন্য হয়ে পড়েছে। স্থানীয় লালব্রীজ, বাঁশঘাটা ব্রীজ, ঈদগাঁও হাইস্কুল পয়েন্ট, রাবার ড্যাম, জাহানারা বালিকা বিদ্যালয় পয়েন্ট, পালপাড়া সহ জন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান ও ঘনবসতিপূর্ণ এলাকার নিকটবর্তী স্থান থেকে প্রকাশ্য দিন দুপুরে নিয়োজিত শ্রমিকরা বালি উত্তোলন করছে। ঈদগাহ হাইস্কুল পয়েন্টে বেশ কিছুদিন যাবৎ দু’টি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে ক্ষমতাসীন দলের এক নেতার লোকজন বালি উত্তোলন করছে। এভাবে বালি উত্তোলন করায় হাইস্কুল সংলগ্ন ঈদগাঁও নদীর দক্ষিণ পাড়ে কোটি টাকা ব্যয়ে স্থাপিত মূল্যবান স্পার বাঁধ চরম ঝুঁকিতে পড়েছে। নদীর পাহাড়ী ঢল ও উজান থেকে বয়ে আসা বন্যা ও বৃষ্টির পানি থেকে পাশ্ববর্তী দু’টি বিদ্যালয় এবং জেলার দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদগাঁও বাজারে দু’সহ¯্রাধিক দোকান পাটের মূল্যবান মালামাল ও স্থাপনা রক্ষার্থে কয়েক বছর আগে স্পার বাঁধটি নির্মিত হয়েছিল। ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র অব.প্রাপ্ত কর্ণেল এহছান ও অব.মেজর ফোরকানের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় উক্ত বাঁধ নির্মিত হওয়ার পর থেকে নদীর করাল গ্রাস থেকে পার্শ্ববর্তী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ঈদগাঁও বাজারের শত শত দোকান পাট সুরক্ষিত হয়ে আসছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, নদী থেকে বালি উত্তোলনের কারণে এখন স্বয়ং স্পার বাঁধটিও রয়েছে জীবন ঝুঁকিতে। এদিকে ড্রেজার মেশিনের বিকট শব্দে বিদ্যালয় দু’টি তথা ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও ঈদগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাত্যহিক শিক্ষা কার্যক্রম চরম ভাবে ব্যাহত হচ্ছে।
ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক খুরশীদুল জন্নাত জানান, সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ফাইনাল পর্বের অনুষ্ঠান ড্রেজার মেশিনের বিকট শব্দে চরম ভাবে ব্যাঘাত ঘটে। এছাড়া বিদ্যালয়ের দৈনন্দিন প্রশাসনিক ও শিক্ষা কার্যক্রমে চরম ভাবে ব্যাহত হচ্ছে।
ঈদগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম জানান, বালি উত্তোলনের কারণে নদীর স্পার বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হলে তার বিদ্যালয় সহ পুরো বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এতে কোটি টাকার ব্যবসা বাণিজ্য ব্যাহত হতে পারে। তিনি ড্রেজার মেশিনের শব্দ তার বিদ্যালয়ে দৈনন্দিন শ্রেণি কার্যক্রম পরিচালনায় ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে বলে জানান। ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় সিনিয়র শিক্ষক মো. আবু তাহের জানান, ব্যক্তিগত স্বার্থসিদ্ধির জন্য সরকারি স্থাপনা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ব্যাঘাত ঘটানোর অধিকার কারো নেই।
ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র আইসি মো. মিনহাজ মাহমুদ ভূঁইয়া জানান, ড্রেজার মেশিন দিয়ে নদীর বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে বালি উত্তোলনের ব্যাপারটি সম্পূর্ণ অবৈধ। এ ব্যাপারে তিনি পত্রিকা লেখালেখির মাধ্যমে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টি করা জরুরী বলে মনে করেন।