অপহরণের ২৪ দিন পর শিশু উদ্ধার, আটক ২

প্রকাশ:| শনিবার, ১৩ জুলাই , ২০১৩ সময় ০৪:৪৩ অপরাহ্ণ

ঢাকার যাত্রাবাড়ি থেকে অপহরণের প্রায় ২৪ দিন পর ইমন নামে সাত বছর বয়সী এক শিশুকে নগরী থেকে উদ্ধার করেছে ৠাব। একইসঙ্গে অপহরণের সঙ্গে জড়িত দু’জনকে আটক করা হয়েছে।

শনিবার দুপুর ১২টার দিকে মামুন (২৫) ও গোলাপ (২৫) নামে দু’অপহরণকারীকে আটকের পর শিশুটিকে তাদের কবল থেকে উদ্ধার করে ৠাবের চট্টগ্রাম জোনে কর্মরত সহকারী পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসেনের নেতৃত্বে একটি টিম।

ইমন ঢাকার যাত্রাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা জনৈক জামাল হোসেনের ছেলে। তার মা লাইজু আক্তার লেবানেন গৃহশ্রমিক হিসেবে কর্মরত।

ৠাব কর্মকর্তা সাখাওয়াত হোসেন বাংলানিউজকে জানান, মা প্রবাসে থাকায় ইমন যাত্রাবাড়ীতে নানার বাড়িতে তার বাবাসহ থাকত। অপহরণকারী মামুন লাইজু’র সঙ্গে লেবাননে কর্মরত ছিলেন। সেই সুবাদে ইমনের নানার বাড়িতে মামুনের আসা-যাওয়া ছিল।

এ পরিচয়ের সূত্রে ধরে মামুন গত ২০ জুন বিকেল ৩টায় বেড়াতে নেবার কথা বলে কৌশলে ইমনকে অপহরণ করে চট্টগ্রামে নিয়ে ‍আসে। ছেলের অপহরণের কথা শুনে লেবানন থেকে এক সপ্তাহের মধ্যে দেশে ফিরেন লাইজু।

অপহরণের পর মামুন ইমনের বাবা ও মায়ের কাছে কয়েক দফা ফোন করে ৫০ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। পাঁচদিনের মধ্যে টাকা না দিলে এবং অপহরণের বিষয়টি পুলিশ প্রশাসনকে জানালে ছেলের লাশ পাঠানোরও হুমকি দেয় অপহরণকারীরা।

এ ঘটনায় যাত্রাবাড়ি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করা হয়। এ নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে দেনদরবারের পর মুক্তিপণের পরিমাণ দু’লক্ষ টাকায় নেমে আসে। যাত্রাবাড়ি থানা পুলিশ এবং ইমনের পরিবার থেকে ৠাবের সহযোগিতা চাওয়া হয়।

এদিকে ইমনের মায়ের সঙ্গে কথামত দু’লক্ষ টাকা মুক্তিপণ নিতে মামুন ও গোল‍াপ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে নগরীর অলংকার মোড়ের সৌদিয়া কাউন্টারে যায়। এর আগেই সেখানে তাদের ধরার জন্য ওঁৎ পেতে থাকেন ৠাব সদস্যরা।

মামুন ও গোলাপ পৌঁছামাত্র তাদের আটক করে ৠাব সদস্যরা। এরপর তাদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক ৠাব সদস্যরা ফয়’সলেকের আকবর শাহ মাজারের পাশে পাহাড়ের ভেতর একটি বস্তিতে অভিযান চালিয়ে ইমনকে উদ্ধার করে।

আটক দু’জনকে যাত্রাবাড়ি থানায় হস্তান্তর করা হবে বলে ৠাব কর্মকর্তা সাখাওয়াত হোসেন জানিয়েছেন।