অপহরণকারী চক্রের হাত থেকে মাদ্রাসাছাত্র উদ্ধার

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৬ অক্টোবর , ২০১৭ সময় ০৯:৫৬ অপরাহ্ণ

ফাঁদ পেতে ১৭ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে অপহরণকারী চক্রের হাত থেকে মাদ্রাসাছাত্রকে উদ্ধার করেছে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। একই অভিযানে অহরণকারী চক্রের চার সদস্যকেও গ্রেফতার করেছে তারা।

 শুক্রবার (০৬ অক্টোবর) ভোর পাঁচটার দিকে মো. ইব্রাহিম হেলাল (১৫) নামের ওই মাদ্রাসাছাত্রকে চান্দগাঁও থানার পাঠানীয়া গোদা এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়। এর আগে  বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে পরীক্ষা দিতে যাওয়ার সময় সোবহানিয়া আলিয়া কামিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণীর এই ছাত্রকে কর্ণফুলী থানার চর পাথরঘাটা এলাকা থেকে অপহরণ করা হয়।

ইব্রাহিম চর পাথরঘাটা এলাকার হাজী মো. ইদ্রিসের পুত্র।

গ্রেফতার হওয়া চার অপহরণকারী হলেন মো. ফাহিম হোসেন (২১), মো. রাব্বি (২৩), মো. ইমরান হোসেন (২০) ও মো. মফিজুর রহমান রিপন (২৩)।

নগর পুলিশের জনসংযোগ কর্মকর্তা (অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার) মো. আকরামুল হোসেন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়,  বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে ইব্রাহিম হেলাল নিজ বাড়ি থেকে সিএনজি অটোরিকশা করে মাদ্রাসায় টেস্ট পরীক্ষায় অংশগ্রহণের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। প্রতিমধ্যে অপহরণকারী মফিজুর রহমান পরিকল্পিতভাবে সিএনজি অটোরিকশায় উঠিয়ে নেন। অটোরিকশাটি নতুন ব্রিজ এলাকায় পৌঁছলে সহযোগী অপহরণকারী ফাহিম ও রাব্বী সেই গাড়িতে ওঠে। এরপর গলায় চাকু ঠেকিয়ে ইব্রাহিমের ফোন থেকে তার মাকে ফোন দিয়ে পনের লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। মুক্তিপণ না দিলে ইব্রাহিমকে জবাই করে হত্যা করে হবে হুমকি দেয়।পরবর্তীতে কর্ণফুলি রিভারভিউ এলাকায় নিয়ে একটি নিরব জায়গায় ইব্রাহিমকে আটক রাখে। বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত সেখানেই অবস্থান করে তার।

পরে ইব্রাহিমকে নিয়ে চান্দগাঁও এলাকায় শরফত উল্লাহ পেট্রোল পাম্পের পেছনের নির্জন এলাকায় জিম্মি করে রাখে এবং সেখান থেকে তাকে পাঠানিয়া গোদার জান্নাত বেকারির পেছনে গলিতে আটক রাখে। গ্রেফতার অপর অপহরণকারী ইমরান হোসেন ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী পলাতক অপহরণকারী মো. আবু বক্করকে পুরো বিষয়টিতে সহায়তা করছিল।

গ্রেফতার অপহরণকারী চক্রের চারজন

অপহৃত ইব্রাহিমের মা শামিমা খাতুন মোবাইল ফোনে পনের লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করার বিষয়টি অভিযোগ আকারে কর্ণফুলী থানায় জানানোর পর থানা পুলিশ নগর


আরোও সংবাদ