অপরাজনীতির বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে

প্রকাশ:| রবিবার, ২৮ মে , ২০১৭ সময় ০৯:২৬ অপরাহ্ণ

সন্দ্বীপ ছাত্রলীগ পরিষদের বার্ষিক সাধারণ সভায়-মাহফুজুর রহমান মিতা এম.পি
চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মাহফুজুর রহমান এম.পি বলেছেন, সন্দ্বীপে সম্প্রতি প্রতিহিংসা ও অপরাজনীতির কারণে দ্বীপবাসী বর্তমানে কঠিন সময় পার করছে। দ্বীপের রাজনীতিতে কলুষিত হাওয়া বইছে। এক সময়ের শান্ত সন্দ্বীপে অশান্তি বিরাজ করছে। তাই সকল অপরাজনীতির বিরুদ্ধে বর্তমান ছাত্রলীগকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে এবং প্রাক্তন ও সাবেক নেতৃত্বের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে হবে। বর্তমানে যারা রাজনীতির নামে নিজেদের স্বার্থ হাসিল নিয়ে ব্যস্ত তাদের বিরুদ্ধে সকলকে সচেতন থাকতে হবে। পাশাপাশি অপরাজনীতির বিরুদ্ধে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে তবেই সন্দ্বীপের রাজনীতি তার হারানো গৌরবাজ্জ্বল ইতিহাস ফিরে পাবে। নগরীর হালিশহরস্থ মাতৃভূমি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত সন্দ্বীপ ছাত্রলীগ পরিষদের বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সংগঠনের সভাপতি ও অনুষ্ঠানের সভাপতি মাকসুদের রহমান মাকসুদ উদ্বোধনী ও সমাপনি বক্তব্যে বলেন, সন্দ্বীপ ছাত্রলীগ পরিষদ আমাদের অহংকার, ভ্রাতৃত্ববোধ ও ভালবাসার সংগঠন। প্রতিহিংসা বিদ্বেষ ভুলে এই সংগঠনকে লালন করে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া এই সংগঠনের এক নতুন বলয় সৃষ্টি করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে পরিষদের স্বার্থে নি:স্বার্থভাবে কাজ করে যেতে হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা আলী হায়দার চৌধরী বাবলু। এতে আরো বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের উপদেষ্টা মো. নুরুল আমিন, ডা. রফিকুল মাওলা, সন্দ্বীপ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাঈনুদ্দিন মিশন, ১০নং বাউরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন, সন্দ্বীপ থানা ছাত্রলীগের ও সন্দ্বীপ ছাত্রলীগ পরিষদের সাবেক সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু ইউসুফ রিপন, সাংগঠনিক সম্পাদক আখতার জামান শাহীন, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাজিবুল হাসান সুমন, গাজী আনিসুর রহমান, সংগঠনের সাবেক সহ-সভাপতি দেলোয়ার হোসেন সন্দ্বীপি, সাবেক ছাত্রনেতা সাখাওয়াত হোসেন নাসির, সাবেক ছাত্রনেতা মোক্তাদের মাওলা সেলিম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সংগঠনের প্রকাশনা উপ-পরিষদের আহ্বায়ক মো. আকবর হোসেন এর সম্পাদনায় ‘হৃদয়ে ছাত্রলীগ-২০১৭’ নামে একটি বিশেষ স্মারক প্রকাশনা করা হয়। পরিশেষে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবান অনুষ্ঠিত