‘অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে জনগণকে পাহারা দিতে হবে’

প্রকাশ:| শনিবার, ৩০ জুলাই , ২০১৬ সময় ০৯:৩৯ অপরাহ্ণ

পদযাত্রা ২চট্টগ্রাম ১৪ দলের সমন্বয়ক ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক ও সামাজিক শক্তিকে সুসংহত করে জঙ্গীবাদ নির্মূলে আমরা এখন সার্বক্ষণিকভাবে যুদ্ধের ময়দানে আছি। এই যুদ্ধে বিজয়ী না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফেরার অবকাশ নেই। আমাদের প্রত্যেককে এলাকায় এলাকায় জনগণের অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে জঙ্গীবাদের ছোবল থেকে তাদের জানমাল রক্ষা করতে হবে। তিনি আজ শনিবার বিকেলে চকবাজারস্থ গুলজার টাওয়ারের সামনে ১৪ দল চট্টগ্রাম জঙ্গীবাদ বিরোধী পদযাত্রা পূর্ব সমাবেশে সভাপতির ভাষণে একথা বলেন। তিনি আরো বলেন, কারা জঙ্গীবাদের মদদদাতা এবং অর্থ যোগানদাতা তাদেরকে আমরা চিনি। প্রশাসনও তাদের চেনেন। কিন্তু লক্ষ্যনীয় তারা ছাড়া পেয়ে যাচ্ছেন। চকবাজার ও বাকলিয়া এলাকায় মেস-বাসা-বাড়িতে দীর্ঘ দিন থেকে জামাত-শিবিরের গোপন আস্তানা রয়েছে। চিহ্নিত কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির কোচিং সেন্টার গড়ে উঠছে। এদের একাধিক শাখা আছে। এগুলোতে মূলতঃ কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মগজ ধোলাই করে জঙ্গী বানানো হচ্ছে। তিনি কোচিং সেন্টারের নামে জঙ্গীবাদের এই আস্তানা উচ্ছেদ করার জন্য সরকার ও প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী জানান। তিনি এলাকার ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। আমরা আপনাদের পাশে আছি। তবে আপনারা এলাকায় জামাত-শিবির-জঙ্গীদের মদদ দিলে তা আমরা সহ্য করবো না। তিনি ১৪ দলের জঙ্গীবাদ বিরোধী ধারাবাহিক কর্মসূচি পালোনউপলক্ষে আগামী ৩ আগস্ট বুধবার পুরাতন চাঁন্দগাও থানার সামনে এবং ৪ আগস্ট বৃহস্পতিবার পাঁচলাইশ থানার আওতায় মুরাদপুর ডাচবাংলা ব্যাংক চত্বরে বিকেল ৩ টায় অনুরূপ পদযাত্রা ও গণসংযোগ কর্মসূচি পালনের ঘোষণা করেন। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের শক্তি ঐক্যবদ্ধ থাকলে জঙ্গীবাদীদের পায়ের নীচে মাটি থাকবে না। আজ ইসলামের নামে যে জঙ্গীবাদ নির্বোধের মত হত্যা ও নাশকতা চালাচ্ছে। তাদের ধর্ম নেই, মনুষ্যত্ব নেই। ইসলামে একমাত্র যুদ্ধের ময়দানে ছাড়া কোথায়ও হত্যার স্থান নেই। তিনি জঙ্গীবাদীদের কা-জ্ঞানহীন বর্বর বিকৃত মানসিকতার কাপুরুষ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, এই বর্বর কাপুরুষদের আমরা একাত্তরে বিনাশ করেছি। কিন্তু তাদের শিকড় রয়ে গিয়ে ছিল বলেই জঙ্গীবাদ মাথাচাড়া দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জঙ্গীবাদের শিকড় উপরে ফেলতে যে যুদ্ধ চালাচ্ছেন তার সাথে বিশ্ব নেতৃবৃন্দ একাত্ম হয়েছেন। কারণ তিনি এখন শুধু বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নন, বিশ্বনেত্রী এবং উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির আন্তর্জাতিক রোল মডেল। চট্টগ্রাম জেলা জাতীয় পার্টি (জেপি) আহবায়ক আজাদ দোভাষ বলেন, জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম আজ প্রবলভাবে গর্জে উঠেছে। এই গর্জনে জঙ্গীবাদের ঘাঁটি চূর্ণ হবেই। চট্টগ্রাম জেলা ওয়াকার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সামশুদ্দিন খালেদ সেলিম এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন-মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মাহাতাব উদ্দিন চৌধুরী, জাসদ কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য ইন্দু নন্দন দত্ত, গণতন্ত্রী পার্টির চট্টগ্রাম জেলা সাধারণ সম্পাদক তাজের মুল্লুক, সাম্যবাদী দলের জেলা আহবায়ক অমূল্য বড়–য়া, গণআজাদী লীগের জেলা আহবায়ক মাওলানা নজরুল ইসলাম আশরাফী, মহানগর আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী, উপ প্রচার সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর আলহাজ্ব শহিদুল আলম, চকবাজার থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব সাহাবুদ্দিন আহমেদ, পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড সভাপতি হাজী মোহাম্মদ ইউনুচ কোম্পানী, চকবাজার ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক মোজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, নারী নেত্রী সাবেক মহিলা কাউন্সিলর মিসেস মমতাজ খান, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজম রনি। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন-মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলহাজ্ব নঈমুদ্দিন চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম ফারুক, আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক চন্দন ধর, শ্রম সম্পাদক আবদুল আহাদ, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পদাক ডা. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী, মহানগর ন্যাপের যুগ্ন সম্পাদক মিঠুল দাশ গুপ্ত, মহানগর আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক কাউন্সিলর জহর লাল হাজারী, নির্বাহী সদস্য আলহাজ্ব মোহাম্মদ এয়াকুব, আবুল মনসুর, গৌরাঙ্গ চন্দ্র ঘোস, সৈয়দ আমিনুল হক, অমল মিত্র, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, থানা আওয়ামী লীগের আলহাজ্ব ফিরোজ আহমেদ, মোঃ সিদ্দিক আলম, আনসারুল হক, হাসান মনসুর, কাউন্সিলর সাইয়েদ গোলাম হায়দার মিন্টু, মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, মহানগর যুবলীগের আহবায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু, যুগ্ন আহবায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ, মাহবুবুল হক সুমন প্রমুখ।সমাবেশ শেষে এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী ও সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিনসহ ১৪ দলের নেতৃবৃন্দের নেতৃত্বে গুলজার টাওয়ার হতে অলিখাঁ মসজিদ মোড় হয়ে চালপট্টি, চকবাজর কাঁচাবাজার হয়ে চকবাজার পোষ্ট অফিসের মোড় হয়ে রসিক হাজারির লেইন হয়ে প্যারেড ময়দানের কর্ণার হয়ে গুলজার টাওয়ারের সামনে এসে পদযাত্রা শেষ করে মহিউদ্দিন চৌধুরী পদযাত্রার সমাপ্তি ঘোষনা করেন।


আরোও সংবাদ