অগ্নিকাণ্ডে ডুবে যাওয়া মাছ ধরার ট্রলার থেকে দু’জনের দগ্ধ লাশ উদ্ধার

প্রকাশ:| শনিবার, ২০ সেপ্টেম্বর , ২০১৪ সময় ১১:২০ অপরাহ্ণ

কর্ণফুলী নদীতে অগ্নিকাণ্ডের পর ডুবে যাওয়া মাছ ধরার ট্রলার থেকে দু’জনের দগ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে স্থানীয়রা। শনিবার বিকালে ট্রলারটির ভেতর থেকে দু’জনের লাশ উদ্ধার করা হয়।
অগ্নিকাণ্ডে ডুবে যাওয়া মাছ ধরার ট্রলার থেকে দু’জনের দগ্ধ লাশ উদ্ধার
তবে নদীর সীমানা এলাকার তিনটি থানার কোনটি এ বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেনি। সীমানা নিয়ে রশি টানাটানিতে কোন থানায় এত বড় দুর্ঘটনার খবর রাখেনি।

স্থানীয় চরপাথরঘাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছাবের আহমেদ বলেন,‘ ‘ট্রলারটি আগুনে পুড়ে নদীতে ডুবে গেছে। বিকাল পাঁচটার দিকে ট্রলারটি নদী থেকে তোলা হলে ট্রলারের ভেতর থেকে দু’জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে তাদের বাড়ি নোয়াখালী জেলার রামগতি বলে জানা গেছে। আরো দু’জন জেলের হদিস এখনো মেলেনি।’

এদিকে এ ঘটনায় নদীর সীমানার এলাকার কোন থানায় তথ্য দিতে পারেনি। এক থানার কর্মকর্তা অন্য থানার কর্মকর্তার উপর দায় চাপিয়েছেন।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহিউদ্দিন সেলিম বলেন, ‘‘এ বিষয়ে আমার জানা নেই। কোতোয়ালী থানা সীমানায় কোন নদী নেই। কর্ণফুলী থানায় খবর নিতে পারেন।’’

কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহিউদ্দিন মাহমুদ বলেন,‘‘ট্রলারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা কর্ণফুলী নদীর উত্তর অংশে ঘটেছে। তাই এটা আমার থানার সীমানায় পড়েনি। এ বিষয়ে সদরঘাট থানা বলতে পারবে।’

সদরঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ‌আবুল কালাম আজাদ বলেন,‘ঘটনা শুনেছি। তবে এটি সদরঘাট থানার সীমানায় না পড়ায় আমরা কোন খোঁজ খবর নেইনি। এটি কর্ণফুলী থানায় পড়তে পারে।’
অগ্নিকাণ্ডে ডুবে যাওয়া মাছ ধরার ট্রলার থেকে দু’জনের দগ্ধ লাশ উদ্ধার1
শনিবার সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটের কর্ণফুলী নদীতে একটি মাছ ধরার ট্রলারে আগুনের ঘটনা ঘটে। এসময় ট্রলারটি পুড়ে ৮জন মাঝিমাল্লা নিয়ে ডুবে যায়। স্থানীয় লোকজন চারজনকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এদের মধ্যে তিনজনকে হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যজনকে ক্যাজুয়ালিটি ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের বিভাগীয় প্রধান মৃণাল কান্তি দাশ বলেন, ‘তিনজনের মধ্যে লিটনের অবস্থ‍া গুরুতর। তার শরীরের ৯৫ শতাংশ পুড়ে গেছে। অন্য দুইজনের ২২ শতাংশ ও ৪ শতাংশ পুড়েছে।’